আ. লীগের ত্রাণ কমিটিকে প্রশাসনের সহযোগী হিসেবে চায় টিআইবি

নিজস্ব প্রতিবেদক:
আ. লীগের ত্রাণ কমিটিকে প্রশাসনের সহযোগী হিসেবে চায় টিআইবি
করোনাভাইরাসের প্রেক্ষাপটে মানুষকে ত্রাণ সহায়তা দিতে ওয়ার্ড পর্যায়ে কমিটি গঠনের ঘোষণা দিয়েছে আওয়ামী লীগ। তবে ইতিমধ্যে সরকারি দলের নেতা–কর্মীদের বিরুদ্ধে ত্রাণ আত্মসাতের অভিযোগ ওঠায় এ কমিটি কতটুকু কার্যকর হবে তা বিষয়ে সংশয় প্রকাশ করেছে দুর্নীতি বিরোধী সংস্থা ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)।

শুক্রবার সংস্থাটির জনসংযোগ বিভাগ থেকে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ কথা জানানো হয়। এতে বলা হয়, দলীয় কমিটি যেন স্থানীয় প্রশাসনের সহযোগী হিসেবে কাজ করে এ ব্যাপারে সরকারকে নিশ্চিত করতে হবে।

সংস্থাটি বলছে, জাতির ক্রান্তিলগ্নে সব ধরনের রাজনৈতিক বিবেচনার ঊর্ধ্বে উঠে সবার সর্বাত্মক অংশগ্রহণ জরুরি। দেশের বিভিন্ন এলাকায় ত্রাণ সামগ্রী চুরি ও আত্মসাৎসহ বিভিন্ন প্রকার দুর্নীতি এবং তাতে দলীয় নেতা–কর্মীদের জড়িত থাকার যে খবর গণমাধ্যমে প্রকাশিত হচ্ছে, তাতে এই দলীয় ‘ত্রাণ কমিটি’ কার্যত কতটুকু ইতিবাচক ভূমিকা পালন করবে তা নিয়ে সংশয় থাকাটা স্বাভাবিক।

টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, দেশের এ সংকটকালে সবচেয়ে বেশি বিপন্ন অবস্থায় আছেন হতদরিদ্র জনগোষ্ঠী। এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন করোনা সংক্রমণের কারণে সৃষ্ট অচলাবস্থায় বেকার হয়ে যাওয়া মানুষ। এদের সবার কাছেই সরকারি সহায়তা পৌঁছাতে হবে। এ ক্ষেত্রে দলীয় বিবেচনা বা ব্যক্তিগত পছন্দ অপছন্দের কোনো সুযোগ নেই।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দুর্নীতিবিরোধী অবস্থানসহ এই বিষয়ে তার সুস্পষ্ট নির্দেশনা ঘোষণা করেছেন। আমরা আশ্বস্ত হতে চাই যে সরকার প্রধানের এই অবস্থান ত্রাণ তৎপরতার ক্ষেত্রে কঠোরভাবে প্রতিফলিত হবে।

নতুন যে দলীয় কমিটি গঠন করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে, তাদের দায়িত্বশীল অংশগ্রহণ হতদরিদ্রদের তালিকা তৈরিতে ইতিবাচক ভূমিকা তখনই পালন করতে পারে যখন তারা দলীয় বিবেচনার ঊর্ধ্বে থাকতে পারবেন।

ইফতেখারুজ্জামান বলেন, ত্রাণ কার্যক্রমের স্বচ্ছতা নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে সরকারি প্রশাসনকে এই কর্মকাণ্ড মনিটরিংসহ মূল ভূমিকা পালনের অর্পিত দায়িত্ব নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করতে হবে। দলীয় ত্রাণ কমিটির ভূমিকা যেন স্থানীয় প্রশাসনকে সহায়তা করার মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকে এবং কোনোভাবেই যেন এটা প্রশাসন যন্ত্রের ওপর প্রভাব বিস্তার করে অনিয়মের মহোৎসব করার প্ল্যাটফর্মে পরিণত না হয়। পাশাপাশি যে কোনো ধরনের অনিয়মের অভিযোগই প্রশাসন সক্রিয়ভাবে বিবেচনা করে, দলীয় পরিচয় বিবেচনা না করে দোষীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নেবেন এটাই আমরা প্রত্যাশা করি।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

দেশের সকল থানার ওসির নাম্বার

ডেস্ক রিপোর্ট: বাংলাদেশের সকল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এর সরকারি মোবাইল নাম্বারসমূহ: ডিএমপি, ঢাকা: ১) …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!