ইউ এন ও গ্রেফতারে প্রধানমন্ত্রী বিস্মিত ! !

ইউ এন ও গ্রেফতারে প্রধানমন্ত্রী বিস্মিত ! !

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি বিকৃত করে কার্ড ছাপানোর অভিযোগে একজন ইউ এন ও গ্রেফতারে খোদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পর্যন্ত ছিলেন বিস্মিত। গতকাল বৃহস্পতিবার বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় ছাপা এই খবর দেখে প্রধানমন্ত্রীর দফতরের কর্মকর্তারাও বিস্ময়ে হতবাক হয়ে যান।

ঘটনার পরপরই তারা বিষয়টি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে জানান। প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক ও প্রশাসন বিষয়ক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম একটি অনুষ্ঠানে সরাসরি দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এইচ টি ইমাম বলেন, আমরা সবাই প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে আজ যত কর্মকর্তা ছিলেন, এটি দেখে আমরা সকলেই বিস্মিত হয়েছি।

যে ব্যক্তি এই মামলা করেছেন, আমরা মনে করি তিনি খুব ঘৃণিত একটি কাজ করেছেন। এইচ টি ইমাম আরো জানান তিনি তাৎক্ষণিকভাবে প্রধানমন্ত্রীকে একজন ইউএনওকে গ্রেফতার করে নিয়ে যাওয়ার ছবিটি দেখান। এইচ টি ইমাম বলেন আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, ছবিটি দেখে বিস্মিত হলেন।

প্রধানমন্ত্রী বললেন, ক্লাশ ফাইভের ছেলে-মেয়েদের মধ্যে এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করে এই ইউএনও অফিসার সুন্দর একটি কাজ করেছেন এবং সেখানে যে ছবিটি আঁকা হয়েছে সেই ছবিটিতে বিকৃত করার মতো কিছুই করা হয়নি। এই ইউ এন ও অফিসারটি রীতিমত পুরস্কার পাওয়ার যোগ্য। আর সেখানে উল্টো আমরা তার সঙ্গে এই ধরনে একটি খারাপ কাজ করেছি, এই বলে প্রধানমন্ত্রী তিরস্কার করলেন।

এটি রীতিমত নিন্দনীয় কাজ। কিভাবে একজন প্রজাতন্ত্রের একজন কর্মচারীকে গ্রেফতার করা হলো কোনরকম অনুমোদন ছাড়া? এ প্রশ্নের উত্তরে এইচ টি ইমাম বলেন, এটি করা যায় না। কারণ উপজেলায় ইউএনও হচ্ছেন উপজেলা পর্যায়ে সরকারের সবচেয়ে উর্ধ্বতন কর্মকর্তা। যদি তাকে কোন শাস্তি দিতে হয় বা তার বিরুদ্ধে কোন প্রকার মামলা বা তার বিরুদ্ধে কোন রকম কিছু করতে হলে সরকারের অনুমোদন অবশ্যই প্রয়োজন।

এই ঘটনার জন্য এইচ টি ইমাম বরিশালের ডিসি ও এসপিকে দায়ী করেন। তিনি বলেন, “পুলিশ যে ব্যবহার করেছে এই ছেলেটির (ইউএনও) সঙ্গে, যেভাবে তাকে গ্রেফতার করে নিয়ে গেছে এ নিয়ে আমি ওখানকার ডেপুটি কমিশনার ও পুলিশ সুপার সহ এদের প্রত্যেককে আমি দায়ী করবো।এদের বিরুদ্ধেও আমাদের ব্যবস্থা নিতে হবে।

” কিভাবে এরকম একটি মামলা পুলিশ নিল আর কিভাবে জেলা জজ এই মামলা গ্রহন করলেন, সেটা নিয়েও তিনি প্রশ্ন তোলেন। এইচ টি ইমাম বলেন আরো বলেন এই ঘটনায় মাঠ পর্যায়ের সকল সরকারী কর্মকর্তাদের মধ্যে যে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে মিঃ ইমামও তাদের সঙ্গে একমত।

এইচ টি ইমাম আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী ঘটনাটি শোনার সাথে সাথেই  জানতে চেয়েছিলেন কে এই ব্যক্তি যে এই মামলা করেছে ?

তথ্যমতে জানা যায় ৭ই জুন বরিশালে আওয়ামী লীগের এক নেতা এবং বরিশাল জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি ওবায়েদ উল্লাহ সাজু আদালতে মামলাটি করেন । এবং তারা তাতে অভিযোগ করেন জেলার আগৈলঝাড়া উপজেলায় স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানের আমন্ত্রণপত্রে শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি বিকৃত করে ছাপানো হয়েছে। এই ছবি বিকৃত করার জন্য অভিযুক্ত করা হয়েছে আগৈলঝাড়া, বরগুনা সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা তারিক সালমান কে ।

মামলার শুনানিতে বরিশালের মুখ্য মহানগর হাকিমের আদালত প্রথমে ঐ নির্বাহী কর্মকর্তাক তারিক সালমান কে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছিল পরে গত বুধবার এই নির্দেশ দেয়ার দুই ঘন্টা পর আবার আদালত তাঁকে জামিন দেয় ।

md masud

newsdhaka24.com

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

রামগড়ে পিকআপ ও সিএনজির মুখোমুখি সংঘর্ষ

আদনান হাবিব, রামগড়: খাগড়াছড়ির জেলার রামগড়ে প্রাণ আরএফএল গ্রুপ এর পণ্য পরিবহনকারী পিকআপ ভ্যানের সাথে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!