করোনায় চরম দারিদ্র্য বেড়েছে ৬০ শতাংশ: ব্র্যাক

নিজস্ব প্রতিবেদক:
করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ সংকটে ফেলেছে নিন্ম আয়ের মানুষদের। লকডাউনের কারণে দেশের চরম দারিদ্র্যের হার ৬০ শতাংশ বেড়েছে ও ১৪ শতাংশ মানুষের ঘরে কোনো খাবার নেই বলে জানিয়েছে বেসরকারি সংস্থা ব্র্যাক।

শুক্রবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ব্র্যাক জানায়, তাদের পরিচালনায় করোনাভাইরাসের স্বাস্থ্যগত দিক নিয়ে নিম্ন আয়ের মানুষের অর্থনৈতিক সংকট নিয়ে একটি জরিপ চালানো হয়। যাতে দেশের ৬৪ জেলার ২ হাজার ৬৭৫ জন নিন্ম আয়ের মানুষ অংশ নেয়।

তারা জানায়, ৩১ মার্চ থেকে ৫ এপ্রিল পর্যন্ত পরিচালিত ওই জরিপে ফলাফলে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

ব্র্যাকের অ্যাডভোকেসি ফর সোশ্যাল চেইঞ্জ প্রোগ্রাম পরিচালিত জরিপটিতে মাঠ পর্যায়ে তথ্য সংগ্রহ করেন ব্র্যাকের মাইক্রোফাইন্যান্স, আরবান ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম এবং পার্টনারশিপ স্ট্রেংদেনিং ইউনিটের কর্মীরা।

জরিপ অনুযায়ী, এদের ৩৬ শতাংশ জানেন না কীভাবে করোনাভাইরাস প্রতিরোধ করতে হয়। এমনকি করোনাভাইরাসের লক্ষণ (জ্বর, কাশি, শ্বাসকষ্ট) নিয়ে সরাসরি হাসপাতালে না আসার পরামর্শ দেওয়া হলেও, তা জানেন না অনেকেই। জরিপে অংশ নেওয়া ৫৩ শতাংশ বলেছেন, প্রতিবেশীর কারো মধ্যে এসব উপসর্গ দেখা দিলে তাকে শহরের হাসপাতাল বা সরকারি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে যেতে হবে। আর মাত্র ২৯ শতাংশ হেল্পলাইনে ফোন করার কথা বলেন।

ব্র্যাক তার প্রতিবেদনে জানায়, করোনাভাইরাস প্রতিরোধের নানা উদ্যোগের ফলে নিম্ন আয়ের মানুষ জীবিকা মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। জরিপে দেখা গেছে অংশগ্রহণকারীদের ৮৯ শতাংশ চরম দরিদ্রে পরিণত হয়েছেন। অর্থাৎ, দরিদ্র্যরেখার নিম্নসীমার নিচে নেমে গেছেন। করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের পূর্বের আয়ের ভিত্তিতে এদের ২৪ শতাংশ ছিলেন দারিদ্র্যরেখার নিম্নসীমার নিচে ও ৩৫ শতাংশ ছিলেন দারিদ্র্যরেখার ঊর্ধ্বসীমার নিচে। অর্থাৎ, চরম দারিদ্র বর্তমানে ৬০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে।

করোনা প্রাদুর্ভাবের আগে জরিপে অংশ নেওয়া ২ হাজার ৬৭৫ জনের গড় আয় ছিল ১৪ হাজার ৫৯৯ টাকা। এদের ৯৩ শতাংশ জানিয়েছে, করোনা প্রাদুর্ভাবের পর তাদের আয় কমেছে। মার্চে তাদের গড় আয় দাঁড়িয়েছে ৩ হাজার ৭৪২ টাকায়। অর্থাৎ তাদের পারিবারিক আয় ৭৫ শতাংশের মতো কমেছে। চট্টগ্রাম (৮৪ শতাংশ), রংপুর (৮১ শতাংশ) এবং সিলেট বিভাগের (৮০ শতাংশ) মানুষের আয় কমেছে।

সাধারণ ছুটির ও সামাজিক দূরত্বের কারণে ৭২ শতাংশ মানুষ কাজশূন্য হয়ে পড়েছেন। ৮ শতাংশ মানুষের কাজ থাকলেও বেতন পাননি। কৃষিকাজে সম্পৃক্তদের (৬৫%) তুলনায় অকৃষিখাতের দিনমজুর বেশি (৭৭%) ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। ৫১ শতাংশ রিকশাচালক, ৫৮ শতাংশ কারখানা শ্রমিক, ৬২ শতাংশ দিনমজুর, ৬৬ শতাংশ হোটেল/রেস্তোরাঁকর্মী জানান, চলতি মাসে তাদের আয় শূন্যের কোঠায় নেমে এসেছে।

জরিপ অনুযায়ী, ১৪ ভাগ মানুষের ঘরে কোনো খাবার নেই। ২৯ শতাংশ মানুষের ঘরে ১ থেকে ৩ দিনের খাবার আছে।

ব্র্যাক তাদের পরামর্শে জানায়, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে এর ব্যবস্থাপনা নিয়ে টেলিভিশনে প্রচারণা চালাতে হবে। দেশব্যাপী খাদ্য সংকটে পড়া মানুষের কাছে খাদ্য পৌঁছানোর ব্যবস্থা করতে হবে। তাহলে সামাজিক দূরত্বের সঠিকভাবে বাস্তবায়ন সম্ভব হবে। না হলে মানুষ জীবিকার তাগিদে ঘরের বাইরে বের হতে বাধ্য হবে।

শহর থেকে অসংখ্য মানুষ গ্রামে ফিরে গেছেন। এসব মানুষ গ্রামের সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতাভুক্ত নন। তাই তাদের কাছে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছানোর ব্যবস্থা করতে হবে।

এপ্রিলের মাঝামাঝি সময়ে বোরো ধান কাটা শুরু হবে এবং শেষ হবে মে মাসের শেষ দিকে। এই সময়ের মধ্যে কোনো কৃষক যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হন এবং সঠিক দাম পান সে ব্যবস্থা করতে হবে। প্রয়োজনে সরকার আগাম ধান ক্রয় অভিযান পরিচালনা করতে পারে।

গ্রামের সবজি, দুধ-ডিম-মাছসহ বিভিন্ন খাদ্যদ্রব্য পরিবহন ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় এগুলোর দাম কমে গেছে। খাদ্যসরবরাহ চেইন স্বাভাবিক করতে বিশেষ ব্যবস্থা জোরদার করতে হবে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

উদ্যত শির লুটিয়ে দাও

  লেখক ডাক্তার রফিকুল ইসলাম হে বিশ্ব! থমকে দাড়ালে কেন? চমকে গেলে কেন? কোথায় তোমার …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!