খাওন নাই খুব কষ্টে গাড়ি নিয়্যা বের অইছি’

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে আজ শুক্রবার হঠাৎ করে গণপরিবহন চলতে শুরু করেছে। পাশাপাশি বেড়ে গেছে যানবাহনের চলাচল। এতে করোনার সংক্রমণ রোধে সরকারের গৃহীত পদক্ষেপ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে।

আজ শুক্রবার বেলা সোয়া ১১টা থেকে ১টা পর্যন্ত মহাসড়ক ঘুরে বাস চলতে দেখা গেছে। এ সময় মহাসড়কের মির্জাপুর, কুর্ণী, শুভুল্যা, কদিম ধল্যা, আছিমতলা ও পাকুল্যা এলাকায় অবস্থান করে গড়ে প্রতি ১০ মিনিটে একটি করে বাস চলতে দেখা গেছে। বাসগুলোর অধিকাংশই উত্তরাঞ্চল থেকে ঢাকাগামী। এর মধ্যে সিরাজগঞ্জ থেকে বেশি বাস ঢাকার দিকে যাচ্ছে। আর জামালপুর, কেন্দুয়া, ভূঞাপুর থেকেও ঢাকাগামী বাস দেখা গেছে। তবে এই সময়টুকুতে টাঙ্গাইলগামী মাত্র তিনটি বাস দেখা গেছে। মহাসড়কে অবস্থানকালীন ওই সময়ে কোনো পুলিশি তৎপরতাও চোখে পড়েনি।

সিরাজগঞ্জ থেকে ঢাকাগামী বাসচালক মাজম আলীর সঙ্গে কথা হয় মহাসড়কের আছিমতলা এলাকায়। তিনি বলেন, ‘অন্য বাসগুলোতে গরিব যাত্রীদের বেশি ভাড়ায় তুলতেছিল। আমি যাত্রীদের কম ভাড়ায় গাজীপুর নিয়ে যাচ্ছি। হ্যারা বেশির ভাগ গার্মেন্টসে কাজ করে।’ তবে পথে পুলিশ বা অন্য কেউ তাঁকে বাধা দেয়নি বলে তিনি উল্লেখ করেন।

ঢাকা–টাঙ্গাইল মহাসড়কে চলছে যাত্রীবাহী বাস। ছবি: সোহেল মহসীনঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে আজ শুক্রবার হঠাৎ করে গণপরিবহন চলতে শুরু করেছে। পাশাপাশি বেড়ে গেছে যানবাহনের চলাচল। এতে করোনার সংক্রমণ রোধে সরকারের গৃহীত পদক্ষেপ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে।

আজ শুক্রবার বেলা সোয়া ১১টা থেকে ১টা পর্যন্ত মহাসড়ক ঘুরে বাস চলতে দেখা গেছে। এ সময় মহাসড়কের মির্জাপুর, কুর্ণী, শুভুল্যা, কদিম ধল্যা, আছিমতলা ও পাকুল্যা এলাকায় অবস্থান করে গড়ে প্রতি ১০ মিনিটে একটি করে বাস চলতে দেখা গেছে। বাসগুলোর অধিকাংশই উত্তরাঞ্চল থেকে ঢাকাগামী। এর মধ্যে সিরাজগঞ্জ থেকে বেশি বাস ঢাকার দিকে যাচ্ছে। আর জামালপুর, কেন্দুয়া, ভূঞাপুর থেকেও ঢাকাগামী বাস দেখা গেছে। তবে এই সময়টুকুতে টাঙ্গাইলগামী মাত্র তিনটি বাস দেখা গেছে। মহাসড়কে অবস্থানকালীন ওই সময়ে কোনো পুলিশি তৎপরতাও চোখে পড়েনি।

সিরাজগঞ্জ থেকে ঢাকাগামী বাসচালক মাজম আলীর সঙ্গে কথা হয় মহাসড়কের আছিমতলা এলাকায়। তিনি বলেন, ‘অন্য বাসগুলোতে গরিব যাত্রীদের বেশি ভাড়ায় তুলতেছিল। আমি যাত্রীদের কম ভাড়ায় গাজীপুর নিয়ে যাচ্ছি। হ্যারা বেশির ভাগ গার্মেন্টসে কাজ করে।’ তবে পথে পুলিশ বা অন্য কেউ তাঁকে বাধা দেয়নি বলে তিনি উল্লেখ করেন।

ঢাকাগামী অপর একটি বাস বেলা একটার দিকে থামে মহাসড়কের কুর্ণী এলাকায়। চালকের সহকারীকে অনুরোধ করে বাসের ভেতরে গিয়ে দেখা যায় যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড়। কেউই সামাজিক দূরত্ব মানেননি। এ সময় যাত্রীদের কাছে করোনা ভাইরাসের বিষয়টি সবাই জানেন কি না এবং সরকার যে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলতে অনুরোধ করেছে, বিষয়টি অবগত আছেন কি না? জানতে চাইলে অনেকেই বলেন, সব জেনেও তাঁরা বাসে যাত্রী হয়েছেন।

বাসচালক মামুন মিয়া বলেন, ‘কী করুম। এই কয় দিন তো বন্ধই রাখছিলাম। পেট আর চলে না। আমরা গরিব মানুষ। খাওন নাই, খুব কষ্টে গাড়ি নিয়্যা বের অইছি।’

বাসটির এক যাত্রী গাজীপুরের মাইক্রোফাইবার গ্রুপের একটি পোশাক কারখানায় কর্মরত কাটিং মাস্টার সাইফুল ইসলাম বলেন, আগামী রোববার থেকে তাঁদের কারখানা চালু হবে। খবর পেয়ে ২৫০ টাকা ভাড়ায় সিরাজগঞ্জ থেকে রওনা হয়েছেন। অন্য সময় ১০০-১৫০ টাকা ভাড়ায় যেতে পারতেন। তিনি বলেন, ‘ভাইরাসের ভয় তো আছেই। তাও পেটের দায়ে বের হইছি।’

বাসটির এক যাত্রী গাজীপুরের মাইক্রোফাইবার গ্রুপের একটি পোশাক কারখানায় কর্মরত কাটিং মাস্টার সাইফুল ইসলাম বলেন, আগামী রোববার থেকে তাঁদের কারখানা চালু হবে। খবর পেয়ে ২৫০ টাকা ভাড়ায় সিরাজগঞ্জ থেকে রওনা হয়েছেন। অন্য সময় ১০০-১৫০ টাকা ভাড়ায় যেতে পারতেন। তিনি বলেন, ‘ভাইরাসের ভয় তো আছেই। তাও পেটের দায়ে বের হইছি।’

মির্জাপুর ট্রাফিক পুলিশের উপপরিদর্শক (এস আই) মোস্তাক আহমেদ বলেন, গাড়ি নাই বলে রাস্তায় তেমন একটা বের হচ্ছি না। উত্তরাঞ্চল থেকে আসা বাসগুলো সিরাজগঞ্জ বা ওইদিকের এলাকা পার হয়ে ঢাকার দিকে যাচ্ছে। সেখানেই তো প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে পারে। বিষয়টি নিয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলব।’

মির্জাপুরের গোড়াই হাইওয়ে থানার ওসি মো. মনিরুজ্জামান জানান, মহাসড়কে বাস চলাচল করার কথা নয়। তিনি বিষয়টি দেখবেন।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

রাজবাড়ীতে নতুন করে ১২ জনের করোনা শনাক্ত ; জেলায় মোট শনাক্ত ৭৪ জন

 রাজবাড়ীতে নতুন করে আরো ১২ জনের করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় মোট শনাক্ত …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!