Home / কেরানীগঞ্জ / কেরানীগঞ্জে অসহায় মানুষের সেবায় নিবেদিত প্রাণ ডাক্তার হাবিবুর রহমান
জনগনের আস্থা

কেরানীগঞ্জে অসহায় মানুষের সেবায় নিবেদিত প্রাণ ডাক্তার হাবিবুর রহমান

আমাদের দেশের চিকিৎসা সেবার ওপর দেশের জনগনের আস্থা দিন দিন কমে যাচ্ছে। কোন ধরনের সমস্যা দেখা দিলেই এখন অনেকেই পাশ্ববর্তী দেশ ভারতে চলে যায় চিকিৎসা নেয়ার জন্য। এর কারন হিসেবে অনেকেই উল্লেখ করেন ডাক্তারদের অবহেলা, রোগীদের সময় না দেয়া, অতিরক্ত টেষ্ট দেয়া ইত্যাদি।

অনেকেই অভিযোগ করেন দেশের বেশির ভাগ ডাক্তারই রোগী দেখাকে সেবার পরিবর্তে ব্যবসা হিসাবে দেখছে। ডাক্তাররা টাকা ইনকাম করাটাই মূল বিষয় হিসাবে দেখছে। তবে এর ব্যাতিক্রম ডাক্তার ও আছে আমাদের দেশে। কেরানীগঞ্জের ছেলে ডাক্তার হাবিবুর রহমান তেমনি এক ব্যতীক্রম ডাক্তার।

মানব সেবায় নিবেদিত প্রান ডাক্তার হাবিবের বাড়ি কেরানীগঞ্জের নবাবচর গ্রামে। পিতার নাম মো: আলাদিন মিয়া । পিতার নামে নিজ গ্রাম নবাবচরেই প্রতিষ্ঠা করেছে আলাদিন পেইন সেন্টার। এখানে দরিদ্র ও অসহায় রোগীদের অনেকটা বিনামূল্যেই সেবা দিয়ে থাকেন। প্রতি শুক্রবার ঢাকার কেরানীগঞ্জ, সাভার, কামরাঙ্গীচরের বিভিন্ন স্কুলে বিনা মূল্যে রোগী দেখার ক্যাম্প করেন ডাক্তার হাবিবুর রহমান ও তার বোন ডা: নাসরীন রহমান।

ইতি মধ্যেই তার এই ফ্রি ক্যাম্প এলাকায় অনেক আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। ব্যাপক প্রশংসাও কুড়িয়েছেন তিনি। গত বছর ১১ই জানুয়ারী থেকে এই ক্যাম্প শুরু করেন তিনি। প্রতি সপ্তাহে শুক্রবার প্রায় শতাধিক রোগী দেখেন তারা। এর মধ্যে একদিনে ৪৮৮ জন রোগী দেখার রেকর্ড ও রয়েছে। এই ক্যাম্পগুলোতে যে শুধু ফ্রীতে রোগী দেখেন তা নয়। এখান থেকে ফ্রিতে ঔষধ দিয়ে দেয়া হয়। এখানে সেবা নিতে আসা রোগীদের যদি কোন টেষ্টের প্রয়োজন পরে তা হলে প্রথমবার তা ফ্রিতে করে দেয়া হয় তার ই প্রতিষ্ঠিত আটিবাজার সেন্ট্রাল হাসপাতাল থেকে। গত শুক্রবার তিনি ৫৬ তম ক্যাম্প শেষ করেছেন।

ফ্রী ক্যম্পে আসা পঞ্চাশ বছরের বয়ষ্ক আবুল হোসেন বলেন, তার হাটুতে ব্যাথা অনেক দিন ধরে। গরীব মানুষ ভাল ডাক্তার দেখতে পারি না। ঔষধও খেতে পারি না। তাই ব্যাথা নিয়ে পরে থাকি। এখানে ডাক্তার সাহেব ফ্রীতে চিকিৎসা দিলেন আবার ঔষধও দিলেন। আল্লাহ তায়ালা ডাক্তার সাহেবকে দীর্ঘ আয়ু যেন দেন । নামায পড়ে আমি সেই দোয়া করবো। তার মত ডাক্তার যেন বাংলার প্রতিটি ঘরে জন্ম নেয়। তাহলে আমাদের মত গরীব মানুষদের বিনা চিকিৎসায় মরতে হবে না। মৃত্যু আগে অন্তত চিকিৎসটা করে মরতে পারবো।

ফ্রী ক্যাম্পে আসা রহিমা আক্তার নামের আরেক মহিলা জানান, তিনি তার বাচ্চাকে নিয়ে আসছেন। বাচ্চার বাবা না থাকায় ভাল ডাক্তার দেখাতে পারছিলাম না। বেশ কয়েকদিন যাবৎ আমার বাচ্চাটার জ্বর। ডাক্তার সাহেব আমার বাচ্চাটাকে দেখে কিছু ঔষধ দিয়েছেন আর কিছু পরিক্ষা করার জন্য বলেছেন। ডাক্তার সাহের পরিক্ষাগুলো আটি বাজার সেন্টাল হাসপাতাল থেকে করাতে বলেছেন। ওই হাসপাতালটিও তার নিজের। সেখান থেকে পরিক্ষা করালে কোন পয়সা লাগবে না বলেও ডক্তার সাহের জানান। সুধু এই সিলিপটি নিয়ে দেখালেই হবে। এবার আমার বাচ্চাটা ভাল হবে। আমি ডাক্তর সাহেবের জন্য আল্লাহর দরবাওে দোয়া করি। আল্লাহ তায়ালা যেন প্রতিটি ঘরে ঘওে এ রকম ডাক্তার জন্ম দেন।

এ বিষয়ে কথা হলে ডাক্তার হাবিবুর রহমান বলেন, প্রতি শুক্রবার ফ্রি রোগী দেখার ক্যাম্পটা করতে আমার কাছে খুব ভালো লাগে। শুক্রবার সকালে যখন ক্যাম্প করার উদ্দেশ্য বাসা থেকে বের হই, তখন অনেকটা ঈদ আনন্দের মতো লাগে। আর ঈদের আনন্দটা কে মিস করতে চায় বলেন। যেখানে আমার বন্ধু বান্ধব অনেক ডাক্তারই প্রতি শুক্রবার অনেক টাকার বিনিময়ে বিভিন্ন যায়গায় রোগী দেখার উদ্দেশ্য করে যায় সেখানে আমি আমার বোন সহ তিন চার জন ডাক্তার ফ্রি কেম্প করি। এটা আমার মনে অন্য রকম একটা আনন্দের সৃষ্টি করে। আমি এ আনন্দটা কখোনো হারাতে চাই না। যতো দিন বেচে আছি শুক্রবারের ফ্রি ক্যাম্প চলমান থাকবে।#

নিউজ ঢাকা

আরো পড়ুন,লালপুরে নবনির্মিত মাদ্রাসার দ্বিতল ভবনের উদ্বোধন

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

About ahmed raju

ইন সা আল্লাহ নিউজ ঢাকা ২৪ এক দিন অনেক দূর এগিয়ে যাবে আপানাদের সাথে নিয়ে। :)

Check Also

কেরানীগঞ্জে আরো ৩ জন করোনা রোগী শনাক্ত ; মোট আক্রান্ত ৪ জন

কেরানীগঞ্জে নতুন করে আরো ৩ জন করোনা রোগী শনাক্ত। এ নিয়ে সর্বোমোট চারজন করোনা রোগী ...

মন্দা এসে গেছে, প্রস্তুতি নিচ্ছেন তো?

করোনাভাইরাস বিশ্বব্যাপী অর্থনৈতিক মন্দা ডেকে এনেছে। মন্দার সময় মানুষ চাকরি হারায়, আয় কমে যায়। ২০০৭ ...

%d bloggers like this: