আঁশফল
থাইল্যান্ডের বৃহৎ বাণিজ্যিক ও জনপ্রিয় ফল আঁশফল।

আঁশফল লিচুর মতো দেখতে , কিন্তু লিচু নয়

থোকায় থোকায় লিচুর মতোই গাছে ঝুলে থাকে আর দেখতেও অনেকটা লিচুর মতো। খোসা ছাড়িয়ে রসালো পুরু আঁশ মুখে পুরলে মনে হবে যেন লিচুই খাচ্ছি। আবার গাছটা দেখতেও লিচু গাছের মতো। শুধু নামটায় একটু পার্থক্য এই যা। নাম এর অাঁশফল। ফলের চেহারায় একটু শক্ত কাঠ কাঠ ভাব আছে বলে অনেকে চিনে কাঠলিচু নামে। আবার অনেকেই একে লংগান বলেই জানেন। এর বৈজ্ঞানিক নাম Dimocarpus longan এবং ইংরেজীতে longan ও dragon eye নামে পরিচিত।


হাইব্রিড আঁশফল

আঁশফল গাছ মধ্যম আকারের চিরসবুজ গাছ যা ৬ থেকে ৮ মিটার পর্যন্ত লম্বা হয়ে থাকে। আশফল এবং লিচু গাছের ফল ধরার সময় একই। ফলের উপরিভাগ মসৃণ, ফলের রঙ বাদামি, আকার গোল এবং লিচুর চেয়ে অনেক ছোট হলেও ফলের শাঁস সাদা, কচকচে এবং খেতে প্রায় লিচুর মতো। আঁশফলের বীজ গোলাকার চকচকে কালো এবং শাঁস বীজকে আবৃত করে রাখে এবং সহজেই শাঁস বীজ থেকে আলাদা করা যায়। সাধারণত আগস্ট মাসের শেষার্ধ থেকে সেপ্টেম্বরের প্রথমার্ধ পর্যন্ত আশফল আহরণ করা হয়। আঁশফলে প্রচুর পরিমাণে শর্করা ও ভিটামিন ‘সি’ থাকে।

বীজ থেকে সহজেই চারা তৈরি করা যায়। গুটি কলম ও গ্রাফটিংয়ের মাধ্যমেও সহজেই বংশবিস্তার করানো যায়। থাইল্যান্ডের বৃহৎ বাণিজ্যিক ও জনপ্রিয় ফল আশফল। থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, চীন, ভিয়েতনাম, হংকং, সিঙ্গাপুর ও অস্ট্রেলিয়ায় বাণিজ্যিকভাবে আশফল চাষ হয়। থাইল্যান্ড ও মালয়েশিয়ার জিডিপিতে একটি বড় অংশ যোগ হয় আঁশফল রপ্তানি করে।

দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় অঞ্চলের স্থানীয় উদ্ভিদ আঁশফল গাছ বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের পথের ধারে অনেক স্থানেই দেখা যায়। তবে আমাদের দেশের স্থানীয় আশফল অনুন্নত মানের হওয়ায় এর ফল আকারে ছোট এবং রসালো অংশ খুবই কম। বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট সম্প্রতি বারি আঁশফল-১ এবং বারি আঁশফল-২ নামে আঁশফলের দুটি উন্নত জাত বাংলাদেশের সর্বত্র চাষের জন্য মুক্তায়ন করেছে।

অাঁশফল শারীরিক দুর্বলতা তাড়াতে অতুলনীয়। অবসাদ দূর করতেও এর দারুণ সুনাম। হৃদযন্ত্র সুরক্ষা এবং সক্রিয় রাখতে আঁশফল উপকারী ভূমিকা পালন করে। স্ট্রোকের ঝুঁকি কমাতে পর্যাপ্ত পরিমাণে আঁশফল খাওয়া উচিত। পেটের অসুখ দূর করতেও এতে থাকা আঁশ উপকারী। আঁশফলে থাকা লৌহ দেহের ক্ষয়পূরণে সহায়ক। দেহের মাংসপেশির ক্ষয় রোধ করতে আশফল খুবই উপকারী। কোনো ধরনের ফ্যাট না থাকায় ওজন কমাতেও এ ফল সাহায্য করে। আঁশফলের ভিটামিন ‘সি’ নানা ধরনের সংক্রমণ থেকে রক্ষা করে। এতে থাকা অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট রোগ প্রতিরোধে দেহকে শক্তিশালী করে তোলে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

রমজানে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শ

পবিত্র রমজান মাসকে ঘিরে করোনা মোকাবিলায় কিছু নির্দেশনা জারি করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। সংস্থাটির …

Leave a Reply

Your email address will not be published.