বিলিম্বি

হারিয়ে যাওয়া বাংলাদেশী ঔষধি ফল বিলিম্বি

বিলিম্বি এ দেশের হারিয়ে যেতে বসা এক অপ্রচলিত দেশি ফল। এর ইংরেজি নাম Bilimbi এবং বৈজ্ঞানিক নাম Averrhoa bilimbi. দেশী এই ফলটি Cucumber tree বা Tree sorrel নামেও পরিচিত।

বিলিম্বিগাছ খুব বেশি বড় হয় না, ৫-১০ মিটার পর্যন্ত উঁচু হয়। পত্রঝরা বৃক্ষ, শীতে সমস্ত গাছের পাতা ঝরে পরে ও বসন্তে গাছে নতুন পাতা গজায়। পাতাগুলো কামরাঙ্গার মতোই। চৈত্রদিনে বিলিম্বিগাছের ডালপালার গা বেয়ে লাল-বেগুনি রঙের খুদে ফুলের যেন স্রোত নামে।

বিলিম্বি দেখতে অনেকটা পটলের মতো, তবে আরো ছোট। ফলের রং সুবজাভ হলুদ। গাছের কাণ্ড ও শাখা-প্রশাখায় থোকায় থোকায় ফল ধরে, প্রতি থোকায় ১৫-২০টি করে ফল দেখতে পাওয়া যায়। কামরাঙার মতো এই ফলটি অতো বেশি খাঁজকাটা নয়। তবে হালকা পাঁচটি খাঁজ বিলিম্বিতেও আছে। গাছে প্রায় সারা বছর ফল ধরে। বিলিম্বির বীজ থেকে চারা হয়। ডাল কেটে মাটিতে পুঁতে, অর্থাৎ শাখা কলম করে চারা তৈরি করা যায়। এখন আর শুধু টক বিলিম্বি নয়, বিজ্ঞানীরা এর একটি মিষ্টি স্বাদের জাতও উদ্ভাবন করেছেন।

বিলিম্বি ফল হিসেবে কাঁচা খাওয়া যায়, তবে বিলিম্বির বহুবিধ ব্যবহারের মাঝে ছোট মাছ, বড় মাছের মাথা বা মাছের ডিম দিয়ে রান্না করে খেলে স্বাদ অনেকগুণ বেড়ে যায়। ডাল বা মাংসেও বিলিম্বি ব্যবহার করা যায়। পাকা বিলিম্বি দিয়ে মজাদার আচার, চাটনি তৈরি করা হয়। এ ফলটি কাঁচা অবস্থায় খুব টক হলেও রান্নার পর বা চাটনি কিংবা আচার তৈরি করার পর অত টক থাকে না।

বিলিম্বি খাওয়ার ফল হলেও এই গাছ বিভিন্ন অসুখ-বিসুখ সারাতেও কাজে লাগে। রক্তচাপ ও ডায়াবেটিকসের ঝুঁকি কমাবার প্রতিশ্রুতি রয়েছে এতে। এর পাতা বেটে মলমের মতো শরীরের কোথাও জ্বালাপোড়া, বাতব্যথা, ফোলা, হাম হলে সেখানে প্রলেপ দিলে উপশম হয়। ফুল ঠান্ডা লাগা ও সর্দি-কাশি সারাতে ব্যবহৃত হয়। ফলের শরবত নিয়মিত খেলে উচ্চ কোলেস্টেরল কমে। কাপড়ের দাগ তুলতে ফল ব্যবহার করা হয় আর কাপড় লাল রঙে রাঙাতে ব্যবহার করা হয় ফুল।

অপ্রচলিত এ ফলটি এখন বাজারে প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায়। বিক্রিও হয় বেশ চড়া দামে। পরিচিতি বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে এর চাহিদাও বাড়ছে দিনে দিনে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

কাল তুরাগ তীরে জোড় ইজতেমা শুরু

আগামীকাল ১৮ ডিসেম্বর থেকে টঙ্গীর তুরাগ তীরে বিশ্ব ইজতেমা ময়দানে দুই দিনের জোড় ইজতেমা শুরু …

error: Content is protected !!