অপপ্রচার

এই অপপ্রচার কার স্বার্থে? ইরান

ইসমাইল হোসেন টিটু: সরকারের চলমান দুর্নীতিবিরোধী অভিযানকে সুযোগ হিসেবে ব্যবহার করে রাজধানীর উত্তরে সম্প্রতি জনপ্রিয় নেতাদের বিরুদ্ধে অপপ্রচার হচ্ছে বলে জানিয়েছেন সাধারণ জনগণ এবং নেতাকর্মীরা ।

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ২৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ফরিদুর রহমান খান ইরান এই অপপ্রচারের শিকার । তিনি বলেন এই অপপ্রচার কার স্বার্থে? এখন প্রশ্ন দেখা দিয়েছে? আবার কেউ কেউ সরকারের এ উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছে।

কিন্তু আমরা দেখছি সেই ধারাবাহিকতার আগেই এক শ্রেণির গণমাধ্যম উদ্দেশ্যমূলক নাম প্রচারের মাধ্যমে সেই সব নেতাদের ‘মিডিয়া ট্রায়াল’ করে ফেলছে। এগুলোর পিছনে কোনও অশুভ শক্তির হাত থাকতে পারে বলেও তারা মত দেন বিভিন্ন ব্যক্তিকে।

ইরানের দাবি চরিত্র হননের এ পথে গিয়ে কি লাভ? এমন প্রচার করে হয়তো তাদের সাময়িক কিছু লাভ হতে পারে, কিন্তু দীর্ঘ মেয়াদে এর ফল ভালো হয় না। আবার অপপ্রচার করতে গিয়ে এমন সব তথ্য উপাত্ত্ব সামনে আনা হয় যার অধিকাংশই মিথ্যা প্রমাণিত হবে। তিনি চ্যালেঞ্জ জানিয়েছেন, তার এমন চ্যালেঞ্জের জবাব, এখন তারা কিভাবে নিবেন, সেটাই প্রশ্ন।

তিনি বলেন আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিলকে সামনে রেখে স্বচ্ছ ভাবমূর্তির ত্যাগী ও বঞ্চিত নেতারা নতুন করে স্বপ্ন দেখছেন। ফলে ত্যাগী, স্বচ্ছ ভাবমূর্তি, দলের প্রতি নিবেদিত, পদবঞ্চিত-এমন নেতারা এখন বেশ চাঙ্গা।

গণমাধ্যমের সাথে আলাপকালে তিনি জানান ১৯৮৫ সাল রাজধানী উচ্চ বিদ্যালয় ৬ষ্ঠ শ্রেনী থেকে ছাত্র রাজনীতি শুরু করেন এবং ১৯৯৩ সালে তেজগাঁও কলেজে ছাত্র সংসদের ভিপি নির্বাচিত হন । ১৯৯৪ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত পর তিনবার তেজগাও কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হন এবং ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রলীগ এর সহ সভাপতি ছিলেন ।

২০০৬ থেকে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করে আসছেন এবং তৃণমূল নেতাকর্মীদের কাছে আস্থার প্রতীক হয়ে উঠেছে।

১/১১ এর সময় ধানমন্ডি ৩২ নাম্বার বঙ্গবন্ধু বাড়িতে হামলা হওয়ার আশংকা থাকা অবস্থায় বিভিন্ন নেতাকর্মী নিয়ে নিয়ে প্রতিদিন বাড়ি পাহারা দিতেন । বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১/১১ এর সময় সংসদ ভবনে জেলখানা থাকা অবস্থায় প্রথম পোষ্টার লাগানোর সময় পুলিশের হাতে গ্রেফতার হন ।

২৮ এপ্রিল ২০১৫ সালে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিপুল ভোটে কাউন্সিলর নির্বাচিত হন,বর্তমানে ২৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর হিসাবে এলাকার সামাজিক ও উন্নয়নমূলক কাজে সাধারণ মানুষের কাছে সুপরিচিত লাভ করেন কর্ম দক্ষতার মাধ্যমে । এছাড়াও যে স্কুলে পড়ালেখা করেছেন বর্তমানে ওই স্কুলটির গর্ভনিং বডির সভাপতি এবং তেজগাঁও কলেজ গর্ভনিং বডির সম্মানিত সদস্য নির্বাচিত হন।

অন্যদিকে পদ হারানোর শঙ্কায় আছেন-টেন্ডার ও চাঁদাবাজ, অনুপ্রবেশকারী, দলের ভেতর অন্তর্দ্বন্দ্ব সৃষ্টিকারী, বিভিন্ন দুর্নীতিবজসহ ক্যাসিনো পরিচালনার সঙ্গে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে জড়িত নেতারা।

এ ব্যাপারে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘জিরো টলারেন্স (শূন্য সহিষ্ণুতা)’ ঘোষণা করেছেন। তা বাস্তবায়নে মাঠে নেমেছেন দলটির দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় নেতারা।

তিনি জানান কেন্দ্র থেকে তৃণমূল পর্যন্ত নেতাকর্মীদের মধ্যে কাউন্সিল নিয়ে উৎসব বইছে। মূল দল আওয়ামী লীগের সঙ্গে সহযোগী সংগঠন যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, কৃষকলীগ, ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন শ্রমিক লীগের কাউন্সিল হচ্ছে। জাতীয় সম্মেলনের আগে তৃণমূল গোছাচ্ছে সব সংগঠন। ফলে সবাই এখন কাউন্সিল নিয়ে ব্যস্ত। কাউন্সিলের মাধ্যমে সব পর্যায়ে এবার স্বচ্ছ ভাবমূর্তির নেতা বেরিয়ে আসবে। বিতর্কিতরা বাদ পড়বেন।

আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা গেছে, দলের জাতীয় কাউন্সিলকে সামনে রেখে ইতিমধ্যে দলের সবস্তরের নেতাদের ওপর একাধিক জরিপ চালানো হয়েছে। গোয়েন্দা সংস্থাসহ বিভিন্ন মাধ্যমে পরিচালিত এসব জরিপের বিস্তারিত তথ্য-উপাত্ত দলের হাইকমান্ডের কাছে জমা পড়েছে।

যেসব নেতা অপকর্মের সঙ্গে জড়িত তাদের রাখা হয়েছে নজরদারিতে। এসব দুর্নীতিবাজ নেতা আওয়ামী লীগের নতুন কমিটিতে স্থান তো পাবেনই না, উল্টো তাদের বিরুদ্ধে নেয়া হবে সব ধরনের আইনানুগ ব্যবস্থা।

অন্যদিকে জরিপে ত্যাগী ও স্বচ্ছ ভাবমূর্তির নেতাদের নাম উঠে এসেছে, তাদের একটি পৃথক তালিকা দলীয় সভাপতির কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এতে কেন্দ্রীয় নেতাদের পাশাপাশি তৃণমূলের অনেক পরীক্ষিত নেতার নাম অন্তর্ভুক্ত আছে। যেখানে রয়েছে অনেক নতুন মুখও।

তিনি আরো বলেন ,প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠা করতে চান, সুশাসন প্রতিষ্ঠা করতে যারা দেশে টেন্ডারবাজী, সন্ত্রাস ও ক্যাসিনো ব্যবসা করছে তাদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনা হচ্ছে। দেশে সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, ক্যাসিনো ও মাদকবিরোধী অভিযান চলবেই।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ এখন বিশ্বের কাছে উন্নয়নের রোল মডেল হয়েছে। দেশে বর্তমানে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে কেউ আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি করলে তাকে ছাড় দেওয়া হবে না। দেশ থেকে সন্ত্রাসীদের মূল উৎপাঠন করা হবে।

ক্যাসিনো কেলেঙ্কারিতে জড়িত সহ আরও অন্যান্য দূর্নীতিগ্রস্ত যে বা যারা যেখানে আছে তাদের কাউকে ঠাঁই দেবেননা জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’ প্রশ্নবিদ্ধ ক্যাসিনো কেলেঙ্কারির সঙ্গে জড়িত ও কোন টেন্ডারবাজ ব্যক্তিকে আগামীতে আওয়ামী লীগের সঙ্গে সংযুক্ত হতে দেওয়া হবে না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

কাউন্সিলার ইরান বলেন, ‘আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কখনো কোন অন্যায়কে প্রশ্রয় দেয়নি, দেবেও না। তাই আগামীতে আওয়ামী লীগের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের সম্মেলনের সময় প্রশ্নবিদ্ধ কোন ব্যক্তিকে দলের সঙ্গে সংযুক্ত করবেন না জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।’

সূত্র আরো জানায়,যেসব কাউন্সিলরদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ আসছে তাদের বিরুদ্ধে বড় ধরনের অভিযানে নামছে দুদক। এ লক্ষ্যে ক্ষমতার অপব্যবহার, ক্যাসিনো কেলেঙ্কারি এবং দলের পদ-পদবি ভাঙিয়ে যারা দুর্নীতি করেছে, তাদের পূর্ণাঙ্গ তালিকা তৈরি হচ্ছে। তালিকাভুক্তদের আইনের আওতায় আনা হবে। এদের বিষয়ে সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকেও সবুজ সংকেত দেয়া হয়েছে।

গত রোববার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল জানিয়েছেন, যারা টেন্ডারবাজি, সন্ত্রাসী কার্যক্রম ও ক্যাসিনো ব্যবসা করছেন তাদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হচ্ছে। সন্ত্রাস, চাঁদাবাজ, জঙ্গিবাদ, ক্যাসিনো ও মাদকবিরোধী অভিযান অব্যাহত থাকবে।

কাউন্সিলর ফরিদুর রহমান খান ইরান প্রতিবেদককে জানান, এই সংগঠনের বর্তমান ভাবমূর্তি এতোটাই নষ্ট হয়েছে যে, সংগঠনের দায়িত্ব পাওয়া কিছু নেতার বিষয়ে শেখ হাসিনা কঠোর পদক্ষেপ নেবেন। এখন ক্লীন ইমেজে সম্পূর্ণ এমন নেতা প্রয়োজন, যারা ভাবমূর্তি পুনরুদ্ধার করতে পারবেন।

নিউজ ঢাকা

আরো পড়ুন,র‌্যাগিং-এর দায়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের চার শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

মিডিয়া বিএনপি কে বাচিয়ে রেখেছে : কামরুল ইসলাম

সাবেক খাদ্য মন্ত্রী ও ঢাকা-২ আসনের এমপি এ্যাড: মো: কামরুল ইসলাম বলেছেন, বিএনপি কোন দল …

3 comments

  1. Genuinely no matter if someone doesn’t know afterward its up to other users that they
    will help, so here it happens.

  2. I love your blog.. very nice colors & theme. Did you design this website yourself or did you hire someone to do it for
    you? Plz reply as I’m looking to construct my own blog and would like to find out
    where u got this from. thanks a lot adreamoftrains web host

  3. Very descriptive blog, I enjoyed that bit. Will there
    be a part 2?

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!