পাসপোর্ট অফিসের

যাত্রাবাড়ি পাসপোর্ট অফিসে দালালের অস্তিত্ব নেই : আবজাউল আলম

প্রায় ২ বছর হয়ে গেছে কেরানীগঞ্জে স্থানান্তর করা হয়েছে আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস যাত্রাবাড়ি শাখার। কেরানীগঞ্জে আসার পর সুবিধা এবং অসুবিধা নিয়ে আলোচনার ফাকে পাসপোর্ট অফিসের ইনচার্জ হিসাবে দায়িত্বে থাকা সহকারী পরিচালক মো: আবজাউল আলম দাবী করেন,  যাত্রাবাড়ি পাসপোর্ট অফিসের ভিতরে দালালদের কোন স্থান নেই।

সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় সুন্দর এবং মনোরম পরিবেশে  পাসপোর্ট অফিসে চলছে আবেদন ফর্ম জমা গ্রহন এবং পাসপোর্ট বিতরনের কার্যক্রম। রায়ের বাগ অফিসের চেয়ে এই অফিসটি তুলনামূলক ভাবে অনেক বেশি পরিসজ্জিত এবং গুছানো। ১৫ জন কর্মকর্তাদের একটি টিম গ্রাহকদের সর্বোচ্চ সেবা দেয়ার জন্য নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। অফিসে ঢুকতেই প্রথমে নিচতলায় দেখা মিলে হেল্প ডেস্ক। পাসপোর্ট বিষয়ে সবধরনের প্রশ্ন এবং তার উত্তর মিলে এখান থেকেই। অফিসে কর্মরত সবাইকেই দেখা গেল খুবি আন্তরিকতার সাথে গ্রাহকদের সেবা দিতে।

তবে পরিবেশ আর সেবার মান যাই হোক না কেন, লোডশেডিং বর্তমানে পাসপোর্ট অফিসের জন্য সমস্যার কারন হয়ে দাড়িয়েছে।  মাঝে মাঝে হঠাৎ করেই চলে যায় বিদ্যুৎ যার কারনে কাজে বিলম্ব ঘটে এবং কিছুটা সমস্যায় পড়তে হয় এখানে সেবা নিতে আসা গ্রাহকদের।

এ বিষয়ে সহকারী পরিচালক মো: আবজাউল আলম বলেন, আমাদের কাছে গ্রাহক সেবাই প্রথম। গ্রাহকদের সর্বোচ্চ সেবা দানের জন্য আমরা সব সময় চেষ্টা করে থাকি।  বিদ্যুৎ বিভ্রটের কারনে বর্তমানে সেবার মান কিছুটা ব্যাহত হচ্ছে। গ্রাহকদের সঠিক ভাবে সেবাদান করতে বিলম্ব ভোগ করতে হয়।

এ বিষয়ে কেরানীগঞ্জ বিদ্যুৎ অফিসে কথা বললে তারা জানান মূলত ঢাকা মাওয়া ৪ লেনের প্রকল্প  কাজের জন্যই বিদ্যুৎ বন্ধ রাখতে হচ্ছে। সেনাবাহীনি নিজ তত্বাবধানে এই কাজ করছে। রাস্তায় অনেক বৈদ্যুতিক তারের খুটি অপসারন করতে হচ্ছে। তাদের কাজের সুবিধা অনুযায়ী নির্দেশ মতোই বন্ধ রাখা হয় বিদ্যুৎ। ফলে পাসপোর্ট অফিসে ও লোডশেডিং হয়।

দালালদের বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে পাসপোর্ট অফিসের এ কর্মকর্তা জানান, প্রশাসনের সহায়তা নিয়ে ও কঠোর নজরদাড়ির মাধ্যমে যাত্রাবাড়ি পাসপোর্ট অফিসের ভিতরে দালালদের দৌড়াত্ব কঠোর ভাবে বন্ধ করা হয়েছে। এখন আর পাসপোর্ট অফিসের ভিতরে কোন দালাল নেই বলে দৃঢ়তার সাথে দাবী করেন তিনি।

লোডশেডিং কেরানীগঞ্জের পাসপোর্ট অফিসের প্রধান সমস্যা

পাসপোর্ট অফিসে সেবা নিতে আসা কয়েকজন গ্রাহকের সাথে কথা বললে , সেবার মান নিয়ে তারা সন্তোষ প্রকাশ করেন। তবে ভিন্ন মত ও আছে অনেকের। কয়েকজন গ্রাহক দাবী করেন রাস্তার ওপারে ফটোকপির দোকানগুলোতে দালালরা এখোনো সক্রিয় রয়েছে। এ বিষয়ে পাসপোর্ট অফিস কতৃপক্ষকে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য অনুরোধ জানান তারা।

নিউজ ঢাকা

আরো পড়ুুন,জবিতে দর্শন বিভাগের নবীনবরণ ও বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

অগ্নি নির্বাপন

কেরানীগঞ্জ গার্মেন্টস পল্লীর অধিকাংশ দোকানেই নেই কোন অগ্নি নির্বাপন ব্যবস্থা !

ঢাকার কেরানীগঞ্জের কালিগঞ্জ গার্মেন্টস পল্লী অগ্নিকান্ডের জন্য অত্যন্ত ঝুকিপূর্ন একটি এলাকা। এখানে রয়েছে প্রায় ৮ …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!