চিকুনগুনিয়া

চিকুনগুনিয়া রোগ বাড়ছে দেশে: বাচার উপায় কিভাবে ?

চিকুনগুনিয়া একটি ভাইরাসজনিত রোগ। পূর্ব এশিয়া এবং আফ্রিকার কিছু দেশে এ রোগের প্রাদুর্ভাব হলেও সম্প্রতি আমাদের দেশের অনেক অঞ্চলে এই রোগ সংক্রমনের ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া গেছে। চিকুনগুনিয়া রোগের অস্তিত্ব সর্বপ্রথম আমাদের দেশে দেখা যায় ২০০৮ সালে। পরবর্তীতে ২০১১ সালে শেষবারের মতো চিকুনগুনিয়া রোগের অস্তিত্ব আমাদের দেশে দেখা গিয়েছিলো। সর্বশেষ চলতি বছরে পাওয়া গেল রোগটির অস্তিত্ব।

চিকুনগুনিয়া জ্বরের প্রকোপ গত কিছুদিন ধরে ঢাকায় বেড়েছে। ডাক্তাররা বলছেন গত প্রায় ২ মাস ধরে এই ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা অনেক বেড়েছে। চিকুনগুনিয়া মশা বাহিত একটি ভাইরাসের কারণে হয়ে থাকে । ডেঙ্গু রোগের ভাইরাস বহনকারী এডিস মশাই চিকুনগুনিয়া ভাইরাস বহন করে থাকে।

সর্বপ্রথম ১৯৫২ সালে তানজানিয়ায় চিকুনগুনিয়া রোগটি সনাক্ত করা হয়। বর্তমানে বিশ্বের প্রায় ৬০টি দেশে রোগটির প্রাদুর্ভাব দেখা যায়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, এই রোগের কোন নির্দিষ্ট প্রতিকার নেই। লক্ষণ দেখে চিকিৎসা পদ্ধত্বি নির্ধারন করা হয়।

ডাক্তাররা বলছেন, নির্দিষ্ট কোন পরিসংখ্যান না থাকলেও  আমাদের দেশে এ বছর ডেঙ্গুর চেয়ে চিকুনগুনিয়া রোগীর সংখ্যাই অনেক বেশি।

চিকুনগুনিয়া রোগের লক্ষন সমূহ :

  •  প্রচন্ড জ্বর (১০২ -১০৪)
  •  মাথায় প্রচন্ড যন্ত্রনা
  •  হারের যয়েন্টে ব্যাথা
  •  পেশীর যন্ত্রনা।
  • চর্ম রোগ।
  •  গিরা ব্যাথা।

চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত হলে কি করবেন :

চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত কোন ব্যাক্তিকে কোন মশা কামড় দেওয়ার পর সে মশা কোন সুস্থ ব্যাক্তিকে কামড় দিলে, ওই ব্যাক্তি ও এই রোগে আক্রান্ত হবে।

তাই চিকুনগুনিয়ার সংক্রামন রোধে, আক্রান্ত হবার পর প্রথম সপ্তাহে আবার যেন কোন মশা না কামড়ায় সেদিকে লক্ষ রাখতে হবে।

চিকুনগুনিয়ার চিকিৎসা:

  •  রোগের লক্ষন দেখা গেলে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।
  •  চিকুনগুনিয়ার কোন ভ্যাকসিন অথবা টিকা নাই।
  •   আক্রান্ত হলে কোন ভাবেই এন্টবায়টিক খাওয়ানো যাবে না।
  •  ডিহা্‌ইড্রেশন এড়াতে প্রচুর তরল খাবার খেতে হবে।
  • পর্যাপ্ত বিশ্রাম গ্রহন করতে হবে।
  •  জ্বর ও গায়ে ব্যাথার জন্য প্যারাসিটামল খেতে পারেন।

চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধে করনীয় :

একটু সচেতনতা এবং কিছু পদক্ষেপ গ্রহন করলেই আমরা চিকুনগুনিয়া ভাইরাস থেকে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারি।

  •  ঘরের জানালা গুলোতে নেট ব্যাবহার করতে পারি।
  •  হালকা রঙের জামা আর ট্রাউজার পরতে হবে।
  •  মশা প্রতিরোধর স্প্রে অথবা লোশন ব্যাবহার করুন।
  •  রাতে ঘুমানোর সময় মশারী টাঙিয়ে ঘুমাবেন।
  •  মশা বংশবিস্তার করে এমন আবদ্ধ জলাবদ্ধ জায়গা পরিষ্কার রাখুন।
  •  ভোর বেলা ্‌এবং সন্ধ্যা বেলা বেশি সতর্ক থাকুন। এই সময় চিকুনগুনিয়া দ্বারা আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা বেশি থাকে।
সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

নরসিংদীতে পুলিশ পরিচয়ে চাঁদাবাজি, ভুয়া পুলিশ গ্রেফতার

হৃদয় এস সরকার, নরসিংদী: নরসিংদীর মাধবদীতে পুলিশ পরিচয়ে চাঁদাবাজি করতে গিয়ে পুলিশের হাতেই গ্রেফতার এক …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!