ডিপ্লোমা চিকিৎসক

একজন তরুণ ডিপ্লোমা ডাক্তারের কান্না কেউ শোনে না!

 

সজিবুল ইসলাম হৃদয়, স্বাস্থ্য ডেস্ক ঃ এক দশকেরও বেশি সময় ধরে ডিপ্লোমা চিকিৎসক (ডিএমএফ ডিগ্রীধারী) উপ-সহকারী কমিনিউটি মেডিকেল অফিসার দের নিয়োগ বন্ধ রয়েছে। বর্তমানে প্রায় ৩০ হাজারেরও বেশি ডিপ্লোমা চিকিৎসক বেকারত্বের দুঃসহ যন্ত্রণা ভোগ করছেন।

মঙ্গলবার (৩০ এপ্রিল) বিকালে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে রিপন খন্দকার নামে এক ফেসবুক ব্যবহার কারী ডিপ্লোমা চিকিৎসকদের বেকারত্বের অসহায়ত্ব নিয়ে “একজন তরুণ ডিপ্লোমা ডাক্তারের কান্না কেউ শোনে না” শিরোনামে স্টাটাস দেয়, যা যথারীতি অনেক ফেসবুক ব্যবহারকারীদের হৃদয় স্পর্শ করে ।

পাঠকদের জন্য স্টাটাস টি হুবুহু তুলে ধরা হলো: একজন তরুণ ডিপ্লোমা ডাক্তারের কান্না কেউ শোনে না। ইন্টার্নশিপ শেষ করার সাথে ডিপ্লোমা ডাক্তারটি যখন বেকার হয়ে যায় কেউ শোনে না৷ এক দশকের বেশি সময় ধরে সরকারি সার্কুলার বন্ধ। তাার উপর অাবার বর্তমানে বেসরকারি চাকরিও সোনার হরিণ হয়ে পড়ছে। ডিএমএফ পাশ করেও বাসা থেকে টাকা নেয়ার বেদনা, শুধু একটা দশ-পনেরো হাজার টাকার চাকরির জন্যে পাগলের মতো এ দ্বারে ও দ্বারে ঘোরার সময়গুলোতে কে পাশে থাকে?

ক্লিনিকে ডিউটিতে যখন স্টোর রুমে ডিপ্লোমা ডাক্তারকে থাকতে দেয়, মালিকপক্ষের নানা দুর্ব্যবহার, অযাচিত অনৈতিক চাপে যখন মনে মনে আর কখনও চাকরি করবো না বলা ডিপ্লোমা ডাক্তারটি টানা ২৪ ঘণ্টা এবং ৩০ দিন ডিউটি শেষে ৫০০০ টাকা, দিনে ১৬৬.৬৬ টাকা হাতে পায় তখন তার দীর্ঘশ্বাস কেউ শোনে না।

সন্তান বড় হয়েছে এবার সংসার তো একটু দেখবে। অন্তত বাবা-মা-ভাই-বোন-আত্নীয়দের তো ঈদে ভালো কিছু উপহার দেবে। যে তরুণ ডিপ্লোমা ডাক্তারটি বড় পরিবার-আত্নীয়দের ঈদের উপহার দিয়ে খুশি করতে গিয়ে টাকা ধার করে ফেলে তার বুকের পাথরের ওজনটা কেউ মাপে না।

সরকারি হাসপাতালে চাকুরী না হলে সমাজে আবার দাম নেই। বেসরকারিতে মালিকপক্ষ দু আনার সম্মান দিতে চায় না। আবার এখন তো সার্কুলার এর দেখা নাই। জনগণের এবং এমবিবিএস ডাক্তারদের আচরণ–তার এ জ্বালা নিভে কীভাবে তা কেউ জানতে চায় না।

অনেক ক্লিনিকে বছরের পর বছর বেতন দেওয়া নিয়ে ঘুরায়। খেটে যাওয়া তরুণ ডিপ্লোমা চিকিৎসকটিকে কেউ জিজ্ঞেস করে না তোমার সংসার কীভাবে চলে। তুমি কীভাবে খাও? কীভাবে পরো? কেউ জিজ্ঞেস করে না তোমার পরিবারকে তুমি মাসে কয়দিন সময় দাও? তুমি দিনের পর দিন ৩-৪ ঘণ্টা করে ঘুমাও তোমার অসুখ করে না?

তরুণ ডিপ্লোমা ডাক্তারগুলো কেন হয় ডিপ্রেশান না হয় এংজাইটি না হয় স্ট্রেস ডিজ অর্ডারের রোগী হয়ে যায় কেউ গবেষণা করে না কেন?

একজন তরুণ ডিপ্লোমা ডাক্তার তার জীবনের শ্রেষ্ঠ সময় যৌবনকালটা কী করে কাটিয়ে দেয় তা কেউ দেখেও দেখে না কেন? জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের হাতে তৈরি এই পাবে কি এই অসহায়ত্ব থেকে মুক্তি? অবহেলিত ডিপ্লোমা জাতির এই কান্না কি পৌছাবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে?

নিউজ ঢাকা

আরো পড়ুন,ফেসবুকে প্রেমের নামে প্রতারনা ; অত:পর

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

প্রধান শিক্ষক এখন গরু খামারের কেয়ারটেকার

তাসনীমুল হাসান মুবিন,স্টাফ রিপোর্টারঃ ময়মনসিংহের ত্রিশালের আলহেরা একাডেমী এর প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান শিক্ষক আজিজুল হক …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!