Breaking News
Home / শিক্ষা / ৪ দফা মেয়াদ বাড়ানো হলেও গতি আসেনি জবির ছাত্রী হলের নির্মাণ কাজে

৪ দফা মেয়াদ বাড়ানো হলেও গতি আসেনি জবির ছাত্রী হলের নির্মাণ কাজে

অপূর্ব চৌধুরী, জবি প্রতিনিধি :৪ দফা মেয়াদ বাড়িয়েও মন্থরতা কাটেনি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ছাত্রী হলের নির্মাণ কাজে। এই বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে ছাত্রী হলের নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করে সেটা জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তরের কথা থাকলেও নির্মাণ কাজের ঢিলেঢালাভাবের কারণে সেটা প্রায় অসম্ভব বলেই মনে হচ্ছে। এমনকি ঠিকাদারি কোম্পানি ওয়াহিদ কনস্ট্রাকশনের দায়িত্বরত কর্মকর্তা ও কর্মচারীরাও নির্দিষ্ট করে বলতে পারছেন না যে কবে এই ছাত্রী হলের নির্মাণ কাজ পুরোপুরি শেষ হবে। তাই নির্দিষ্ট সময়ে নির্মানাধীন ছাত্রীহলের উদ্ধোধন নিয়েও অনিশ্চিয়তা তৈরী হয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, খুব ঢিলেঢালাভাবে ছাত্রী হলের নির্মাণ কাজ চলছে। সেখানে মাত্র ১০-১২ জন শ্রমিক কাজ করছেন। কিন্তু তাদের কাজেও আলসেমির ছাপ স্পষ্ট। কাজের সময়ে কয়েকজন শ্রমিককে বসে আড্ডা দিতে, কয়েকজন শ্রমিককে বসে থাকতে এবং কয়েকজন শ্রমিককে ঘুমাতে দেখা যায়। নির্মানাধীন ১৬ তলা বিশিষ্ট এই ছাত্রী হলের অভ্যন্তরীণ বেশিরভাগ কাজই এখনো শুরু হয়নি। পানির লাইন, ইলেকট্রনিক লাইন, লিফট, টাইলস,স্যানিটেশন, অভ্যন্তরীণ বেশিরভাগ কক্ষের রঙ সহ আরও অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ এখনো শুরু হয়নি।এমনকি কিছু কিছু কক্ষের দরজা জানালাও লাগানো হয়নি।যার ফলে ছাত্রী হলের নির্মাণ কাজ প্রকৃতপক্ষে ডিসেম্বরেই শেষ হবে কিনা তা নিয়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীদের মধ্যেও চরম শঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে।

ছাত্রী হলের নির্মাণ কাজে মন্থরগতির কথা স্বীকার করে সেখানে কর্মরত শ্রমিকরা জানান ১৬ তলা বিল্ডিংয়ের বেশিরভাগ কাজই এখনো বাকি রয়েছে।কোম্পানি আমাদেরকে সময়মত নির্মাণ সামগ্রী সরবরাহ করেনা যার ফলে আমরাও দ্রুত গতিতে কাজ করতে পারছি না। এমনকি কবে এই ছাত্রী হলের কাজ শেষ হবে সেটাও আমরা নির্দিষ্ট করে বলতে পারব না। বিল্ডিংয়ের অভ্যন্তরীণ কক্ষে টাইলস বসানো,রঙ দেওয়া, দরজা, জানালা লাগাতে আরও অনেকদিন সময় লাগবে।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান এই ছাত্রী হলের নির্মাণ কাজের ব্যাপারে বলেন, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ছাত্রী হলের কাজটি শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের নিয়ন্ত্রণে আছে এবং এর তদারকিও করছে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর। এই হল নির্মাণ কাজের ওপর জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কোন নিয়ন্ত্রণ নেই।এই বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে ছাত্রী হলের নির্মাণ কাজ পুরোপুরি সম্পন্ন করে ২০২০ সালের জানুয়ারিতে আমাদের কাছে এই হল হস্তান্তর করার কথা রয়েছে। এই ছাত্রী হলের নির্মাণ কাজের মেয়াদও আর বাড়ানো সম্ভব না। তাই আমরা আগামী বছরের জানুয়ারিতেই হল বুঝে পেতে চাই।

ছাত্রী হলের নির্মাণ কাজের ব্যাপারে প্রজেক্ট ম্যানেজার হেলাল উদ্দিন শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের গাফিলতিকে দায়ী করে বলেন, আমাদের কাজের তদারকি করছে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর। গত বছরের (২০১৮সাল) এপ্রিলে তাদের কাছে এক্সটেনশন ফাইল পাঠিয়েছিলাম কিন্তু তার কোন ফলাফল এখন পর্যন্ত পাইনি আমরা।ফাইল পাশ না হলে নির্মাণ কাজের দীর্ঘসূত্রিতা কাটবে না বরং আরও বাড়বে। ফাইলটি পাশ হয়ে হেলেই আমরা দ্রুত এই ছাত্রী হলের নির্মাণ কাজ শেষ করে ফেলব। এখন যদি টাকা না পাই তাহলে ত নির্মাণ কাজ এগিয়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব না।টাকা পেলে বেশি লোকবল নিয়োগ করে তিন মাসের কাজ দুই মাসেও শেষ করা যায়। আর এত বড় হল নির্মাণের জন্য কনস্ট্রাকশন করতে যে পরিমাণ জায়গার প্রয়োজন সে পরিমাণ জায়গাও এখানে নেই। যার ফলে কাজ শুরু করতেও বিলম্ব হয়েছিল। প্রথমে যে টেন্ডার হয়েছিল তার থেকে কনস্ট্রাকশন মূল্য অনেক বেশি ছিল। যার ফলে মন্ত্রণালয় থেকে নতুন টেন্ডারের অনুমোদন আনতেও সময় লেগেছিল।

তিনি আরও জানান, যদি নির্মাণ কাজ এই বছর শেষ নাও হয় তাহলে আগামী বছরের শুরুতেই শেষ হবে।
কনস্ট্রাকশন কোম্পানির সূত্রমতে জানা যায়, ২০ তলা ভিত্তির ওপর নির্মিতব্য ১৬ তলা ভবনের এই ছাত্রী হলের নির্মাণ ব্যয় ধরা হয় ৩৩ কোটি ৩৮ লক্ষ টাকা। প্রকল্পের মেয়াদ ছিল ৩৬ মাস। প্রথম মেয়াদ ছিল ২০১১ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৩ সালের জুন পর্যন্ত। দ্বিতীয় মেয়াদ ছিল ২০১৩ সালের জুন থেকে ২০১৬ সালের জুন পর্যন্ত এবং তৃতীয় মেয়াদ ছিল ২০১৬ সালের জুন থেকে ২০১৮ সালের জুন পর্যন্ত। কিন্তু যথাসময়ে ছাত্রী হলের নির্মাণ কাজ শেষ না হওয়ায় সর্বশেষ ২০১৮ সালের জুন থেকে ২০১৯ সালের জুন পর্যন্ত মেয়াদ বাড়ানো হয়েছিল।ছাত্রী হলের প্রকল্প বাস্তবায়নের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরকে। ১৬ তলা ভবনের এই ছাত্রী হলে মোট ১১১টি কক্ষ থাকবে সেই সাথে একটি লাইব্রেরি, একটি ক্যান্টিন, প্রতি তলায় সাতটি টয়লেট, আটটি গোসলখানা এবং ছাত্রীদের উঠানামার জন্য চারটি লিফট স্থাপন করা হবে।

গত বছরের ডিসেম্বরে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ছাত্রীহলের প্রভোস্ট হিসেবে নিয়োগ পাওয়া রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. আনোয়ারা বেগম ছাত্রী হলের নির্মাণ কাজ সম্পর্কে বলেন, আমরা খুব দ্রুত কনস্ট্রাকশন কাজ শেষ করার জন্য তাগাদা দিচ্ছি। কিন্তু ঠিকাদারি কোম্পানি তা আমলে নিচ্ছে না। এক্সটেনশন বাজেটের অজুহাতে কাজ না করে সময়ক্ষেপণ করছেন তারা।ছাত্রী হলের প্রভোস্ট হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার পরেও কোন কাজ করতে না পেরে আমি খুব হতাশ হয়েছি।জানুয়ারিতে হলে ছাত্রীদের উঠার কথা কিন্তু নির্মাণ কাজের যে ধীরগতি তার জন্য জানুয়ারিতে আসলেই ছাত্রীদেরকে হলে উঠানো যাবে কি না সেটা নিয়ে দ্বিধায় আছি। ছাত্রী হলের নির্মাণ কাজের শুরুতেই যদি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কোন মনিটরিং টিম কাজ করত তাহলে সেটা নির্মাণ সম্পন্ন করতে এত দীর্ঘসূত্রিতা হত না।

এই ব্যাপারে শিক্ষা ও প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী বুলবুল আখতার বলেন, মূলত প্রশাসনিক জটিলতার জন্যই ছাত্রী হলটির নির্মাণ কাজ এত ধীরে চলছে।মন্ত্রণালয় থেকে ফাইল পাশ হয়ে এলেই আমরা অধিক লোকবল নিয়োগ করে দ্রুত এই নির্মাণ কাজ শেষ করে ফেলব৷ আমরা আশাবাদী যে এবছরেই নির্মাণ কাজ শেষ করে আগামী বছরের শুরুতেই হলে ছাত্রীদের উঠানোর ব্যাবস্থা করতে পারব।

নিউজ ঢাকা ২৪https://www.facebook.com/newsdhaka24/

https://newsdhaka24.com/%e0%a6%a8%e0%a7%8b%e0%a6%af%e0%a6%bc%e0%a6%be%e0%a6%96%e0%a6%be%e0%a6%b2%e0%a7%80-%e0%a6%aa%e0%a6%b0%e0%a6%bf%e0%a6%9a%e0%a6%af%e0%a6%bc-%e0%a6%a6%e0%a6%bf%e0%a6%b2%e0%a7%87%e0%a6%87-%e0%a7%a8/আরো পড়ুন; নোয়াখালী পরিচয় দিলেই ২৫% ডিসকাউন্ট

রাজধানীর পল্টন এলাকায় সম্পূর্ণ শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত আধুনিকতার ছোঁয়ায় গ্র্যান্ড সুলতান রেস্টুরেন্ট জয় করে নিয়েছে সর্বসাধারণের মন।
রুচিশীল মানুষের জন্য গ্রান্ড সুলতান রেস্টুরেন্ট যোগ করেছে ভিন্ন মাত্রা।

এখানে ৮২টি আইটেমের নিত্যনতুন খাবার পাওয়া যায় ,থাই, চাইনীজ, ইন্ডিয়ান, বাংলা সহ খাবারের বিশাল সমারোহ ।

রাজধানীর পল্টন ৩৭/২ জামান টাওয়া এর ফার্স্ট ফ্লোর এ রেষ্টুরেন্টটি অবস্থিত।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে
সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

About নিউজ ঢাকা ২৪

Check Also

জবির বিজ্ঞান বিভাগের (ইউনিট-১) লিখিত ভর্তিপরীক্ষার ফল প্রকাশিত

অপূর্ব চৌধুরী, জবি প্রতিনিধি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) শ্রেণির প্রথম বর্ষ লিখিত ভর্তিপরীক্ষার ...

জবি ছাত্র ইউনিয়নের নতুন নেতৃত্বে মুত্তাকী-জাহিন

অপূর্ব চৌধুরী, জবি প্রতিনিধি আজ বৃহস্পতিবার (১৭ অক্টোবর) জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র ইউনিয়নের ২৮ তম কাউন্সিলে ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *