শতভাগ বিদ্যুতের বাংলাদেশে লোডশেডিং কেন? 

এই ভ্যাপসা গরমে লোডশেডিংয়ে অতিষ্ঠ সাধারণ মানুষ , এর ফলে দুর্বিষহ জনজীবন। কয়েকদিন ধরে পত্রিকার পাতায় ও টিভি চ্যানেলে দেশের সর্বত্র  লোডশেডিং এর খবর পাওয়া যাচ্ছে। সরকার বলছে, গ্যাস সংকটের কারণে বিদ্যুৎ উৎপাদন ব্যাহত হওয়ায় লোডশেডিং করতে  হচ্ছে। তবে কবে নাগাদ পরিস্থিতির উন্নত হতে পারে, সে ব্যাপারে কোন নিশ্চয়তা দিতে পারেননি বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। কিন্তু এর প্রতিকার কি?
২০১১ সাল পর্যন্ত এই দেশে ঘরবাড়িতে বিদ্যুতের অভাবে  ঘুটঘুটে অন্ধকার থাকতো,  লোডশেডিং ছিল  নিত্য -নৈমত্তিক  ঘটনা। অনেকের কাছে তা ছিল দুঃসহ স্মৃতির মতো। কিন্তু বর্তমান সরকারের আমলে বিদ্যুৎ উৎপাদনে ব্যাপক সাফল্যে মানুষ লোডশেডিং শব্দটি ভুলেই গিয়েছিল।
সেই অবস্থা থেকে  দেশ আবার লোডশেডিংয়ের অন্ধকারে ছেয়ে গেল কেন? হ্যাঁ, এ ব্যাপারে বিশ্ব পরিস্থিতির দায় আছে, কিন্তু এর বাইরে কি আর কারোর কোনো দায় নেই? বলা বাহুল্য, দেশে বর্তমানে বিদ্যুতের উৎপাদন সক্ষমতা  ২২-২৫ হাজার মেগাওয়াট হলেও চাহিদা মাত্র ১৩-১৪ হাজার মেগাওয়াট। তাই অনেকের প্রশ্ন সক্ষমতা সত্ত্বেও লোডশেডিং কেন?
আসলে দেশে সর্বশেষ হিসাব মতে, ২০০৮-০৯ সালে বিদ্যুতের চাহিদা প্রায় ৭ হাজার মেগাওয়াট থাকলেও তখন উৎপাদন হতো মাত্র ৪ হাজার মেগাওয়াট অর্থাৎ  ঘাটতি থাকতো  প্রায় ৩ হাজার মেগাওয়াট। কিন্তু ২০২২ সালে এসে প্রায় ২৫ হাজার মেগাওয়াট  উৎপাদনের সক্ষমতা থাকলেও চাহিদা মত প্রায় ১৪ হাজার মেগাওয়াট  উৎপাদন করার মত কাঁচামালের যথেষ্ট ঘাটতি আছে । ফলে ১-২ ঘন্টা লোডশেডিং দিতে হচ্ছে। কারণ বিশ্ববাজারে তেল ও গ্যাসের দাম অস্বাভাবিক বৃদ্ধি পাওয়ায় বিদ্যুৎ  কেন্দ্রগুলোর ইউনিট প্রতি উৎপাদন খরচ আগের তুলনায় প্রায় দ্বিগুন বেড়ে গেছে।
এর প্রধান কারণ প্রায় ৮৫% বিদুৎ কেন্দ্র গ্যাস ও তেল নির্ভর বলে মনে করেন প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি উপদেষ্টা তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী। তিনি বলেন, ধৈর্য্য সহকারে এই সংকট মোকাবেলা করতে হবে। সবাইকে নিজ উদ্যোগে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি ব্যবহারে সাশ্রয়ী হতে হবে। পৃথিবীর অনেক উন্নত রাষ্ট্র, যাদের অনেক টাকা পয়সা আছে, তারাও লোডশেডিংয়ে যাচ্ছে। ব্রিটেনে হচ্ছে, অস্ট্রেলিয়ায় হচ্ছে, জাপানে হচ্ছে। কোনো কোনো দেশে বরাদ্দ থাকা সত্বেও, ব্যাংকে অর্থ থাকা সত্বেও সংবরণ করছে।
‘যে জন দিবসে মনের হরষে জ্বালায় মোমের বাতি,
আশু গৃহে তার দেখিবে না আর নিশীথে প্রদীপভাতি।’
কৃষ্ণচন্দ্র মজুমদারের  কবিতার মত -দিনের বেলা প্রদীপ জ্বালানো মানুষকে পরবর্তীতে প্রয়োজনের সময়  অন্ধকারেই সময় কাটাতে হয় । ঠিক তদ্রুপ সুসময়ে যে জাতি কারণে-অকারণে তেল, গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানিসহ মৌলিক চাহিদাসম্পন্ন রাষ্ট্রীয় সম্পদে মিতব্যয়ী না হয়ে বরং  অপচয় করে,  সেই জাতির দুঃসময়ে কঠিন পরীক্ষার সম্মুখীন হয়।  বস্তুত অপব্যয়ই অভাব নিয়ে আসে।
অন্যদিকে সক্ষমতা থাকা সত্ত্বেও লোডশেডিং মানেই হলো বিদ্যুৎখাতের ‘উন্নয়ন’ দর্শনে বড় রকমের ত্রুটি আছে বলে মত দিয়েছেন  জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা। বিদ্যুৎ ছিল না, এখন বিদ্যুৎ আছে। কত বিদ্যুৎ দরকার, উৎপাদন সক্ষমতা কত বাড়ানো হবে, বিজ্ঞানভিত্তিক এই ‘উন্নয়ন’ দর্শন আমাদের বিদ্যুৎ খাতে অনুপস্থিত বলে মনে করেন জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা।
লোডশেডিং এর  কারণ-আন্তর্জাতিক বাজারে গ্যাস ও তেলের দাম বৃদ্ধির পাশাপাশি লোডশেডিং এর অন্যতম প্রধান কারণ হচ্ছে জাতীয় সম্পদের অপচয়। বিশেষ করে অতিমাত্রায় বিদ্যুতের অপচয় লক্ষ করা যায় বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানে। যেখানে অযথা লাইট, ফ্যান, এসিসহ বিভিন্ন ভারি বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতি প্রয়োজনের অতিরিক্ত ব্যবহার হয়ে থাকে। এছাড়াও শহর – গ্রাম প্রায় সব বাসা-বাড়িতে অত্যাধিক মাত্রায় ও কিছু ক্ষেত্রে অপ্রয়োজনে টিভি, ফ্রিজ, এসি, ওয়াশিং মেশিন, হিটার, ইস্ত্রিসহ বিভিন্ন বৈদ্যুতিক যন্ত্র ব্যবহার করা হয়ে থাকে, যেগুলো বিদ্যুৎ অপচয়ের জন্য দায়ী।
এছাড়াও রান্নার কাজের জন্য অতিরিক্ত  গ্যাসের ব্যবহার, কাপড় শুকানোর জন্য বৈদ্যুতিক ফ্যানের অপ্রয়োজনীয় ব্যবহার, ম্যাচের কাঠি বাচানোর জন্য গ্যাসের চুলা জালিয়ে রাখা,  বাসায় ফ্যান, লাইট চালু রেখে অন্য কাজে ব্যস্ত থাকা ও বিয়ে বাড়িতে জাঁকজমকপূর্ণভাবে অপ্রয়োজনীয়  আলোকসজ্জা লোডশেডিং এর জন্য দায়ী।
এই দিকে জ্বালানি বিশেষজ্ঞ  বুয়েটের  অধ্যাপক ডক্টর মোহাম্মদ তামিম বলেন, বর্তমান বৈশ্বিক জ্বালানি পরিস্থিতি বিবেচনায় খরচ সাশ্রয়ের জন্য লোডশেডিংই সেরা বিকল্প। তিনি আরো বলেন – দেশের বিদ্যুৎ উৎপাদনের সক্ষমতার কোন ঘাটতি নেই, কিন্তু উৎপাদনের জন্য প্রাথমিক কাচামালের প্রাপ্যতার যথেষ্ট ঘাটতি আছে। জ্বালানি সংকট মোকাবেলায় দেশের গ্যাস উৎপাদনে নজর দেয়া প্রয়োজন ছিলো।
অপরদিকে জ্বালানি বিশেষজ্ঞ ও বুয়েটের অধ্যাপক ইজাজ হোসেন  বলেন, নবায়নযোগ্য জ্বালানি থেকে বিদ্যুৎ পেতে সরকার জামালপুরে ১শ মেগাওয়াট যে কেন্দ্র নির্মাণ করতে যাচ্ছে, সেটি একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ। এ ধরনের একটি বড় প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে আমরা দেশে সৌরশক্তির বড় অবদানটা বুঝতে পারবো। বিদ্যুতের ট্যারিফ বেশি হলেও পরিবেশের কথা মাথায় রেখে অন্তত এ ধরনের প্রকল্প বাস্তবায়ন জরুরি। নবায়নযোগ্য জ্বালানির মাধ্যমে ভবিষ্যতে বিদ্যুৎ সমস্যার সমাধান সম্ভব।
কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের জ্বালানি উপদেষ্টা এবং বুয়েটের  অধ্যাপক ডা. শামসুল আলম বলেন, সঠিকভাবে লোড ম্যানেজমেন্ট ( লোডশেডিং)  গ্যাস ও বিদ্যুতের বর্তমান উৎপাদন হারের মধ্যেও জনগণের দুর্ভোগ কমাতে পারে। দেশে প্রায় ২ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ  অবৈধভাবে ব্যবহার হয়।  দেশের সকল  গ্যাস ও বিদ্যুতের অবৈধ সংযোগ বন্ধেরও মাধ্যমে এর সমাধান দ্রুত সম্ভব।
অপরদিকে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) চেয়ারম্যান মো. মাহবুবুর রহমান বলেন, বিশ্ববাজারে গ্যাসের দাম ঊর্ধ্বমুখী হওয়ায় আপাতত স্পট মার্কেট (খোলাবাজার) থেকে গ্যাস কেনা হচ্ছে না। এ অবস্থায় জ্বালানি ঘাটতি মোকাবিলায় সারা দেশে দিনে কয়েক ঘন্টার লোডশেডিং চলছে।
এ দিকে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, এই পরিস্থিতি সাময়িক । আমাদের প্রচুর বিদ্যুৎকেন্দ্র রয়েছে। বিশ্বে জ্বালানি তেল ও গ্যাসের দাম অস্বাভাবিক বৃদ্ধি কাঁচামালের কারণে  আমরা উৎপাদন কমাতে বাধ্য হয়েছি। যে তেল আমরা ৭০ থেকে ৭১ ডলারে কিনতাম সেটা এখন প্রায় ১৭১ ডলার হয়ে গেছে এবং মূল্য  দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিশ্বের প্রতিটি দেশ জ্বালানি সাশ্রয়ে কেউ দাম বাড়াচ্ছে কেউবা ব্যবহার কমাচ্ছে । পুরো বিশ্বে এই সংকটময় সময়ের মূল কারণ হচ্ছে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের পাশাপাশি করোনা পরবর্তী শিল্প উৎপাদনে বিদ্যুৎ এর চাহিদা বেড়ে যাওয়া। যদি আমরা সবাই গ্যাস ও বিদ্যুৎ  ব্যবহারে মিতব্যয়ী হয়ে উঠি, তাহলে খুব দ্রুত  এই পরিস্থিতি আমরা  কাটিয়ে উঠতে পারবো।
অন্যদিকে, বিদ্যুৎ সংকটের এই সময়ে সরকারের বিভিন্ন সিদ্ধান্তের কথা জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন  বলেন -বিশ্ববাজারে জ্বালানির দাম বৃদ্ধির ফলে শিডিউল অনুযায়ী এলাকাভিত্তিক লোডশেডিং, দোকান-পাট রাত ৮ টায় বন্ধ,তেল দিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন স্থগিত ও সরকারি-বেসরকারি অফিসের কিছু কার্যক্রম ভার্চুয়ালি এবং সপ্তাহে একদিন পেট্রোল পাম্প বন্ধ রাখার, অফিস টাইম কমানো, ওয়ার্ক ফ্রম হোম, অফিস ভবনে বিদ্যুৎ খরচ সীমিত করার জন্য এতোমধ্যে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।
প্রায় সারাদেশ এখন বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত। শহর, মফস্বল কিংবা অজপাড়াগাঁ সবখানেই এখন বিদ্যুৎ পৌঁছে গেছে। বিদ্যুৎ ব্যবস্থার সহজলভ্যতার ফলে অনেকেই বিভিন্ন সময়ে, কারণে বা অকারণে বিদ্যুৎ অপচয় করে, যা আমাদের দেশের সার্বিক বিদ্যুৎ ব্যবস্থার জন্য ক্ষতিকর।এখন সবারই উচিত বিদ্যুৎ অপচয় রোধ করা।
আমরা নিজেদের অজান্তেই প্রত্যহ অনেক বিদ্যুৎ অপচয় করে ফেলি। এর সঙ্গে দিনকে দিন বাড়তে থাকা বিভিন্ন  প্রযুক্তির  পণ্যের ব্যবহারতো আছেই। তাই বলে কি বিদ্যুৎ ব্যবহার করবেন না? অবশ্যই করবেন। তবে বৈশ্বিক সংকটময় মুহূর্তে
বিদ্যুৎ ব্যবহারে অপচয় না করে বরং মিতব্যয়ী হওয়া উচিত।
বর্তমানে অনেক সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে অযথা বৈদ্যুতিক বাতি জ্বালানো, রাস্তার বাতি সময়মতো বন্ধ না করাসহ নানাভাবে আমরা প্রতিনিয়ত বিদ্যুতের অপচয় করছি। প্রাত্যহিক জীবনে গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানি, তেল একে অপরের পরিপূরক। তাই বিদ্যুৎসহ সকল জাতীয় সম্পদের অপচয় রোধ করার এখনই সময়।
রাষ্ট্রীয় সম্পদের অপচয় রোধ করার উপায়গুলো :
* দিনের আলোর সর্বোত্তম ব্যবহার হোক -দিনের বেলায় লাইট, ফ্যান কিংবা এসি কম ব্যবহার করে বাইরের আলো আর প্রাকৃতিক হাওয়াকে সাদরে আলিঙ্গন  জানান আপন আলয়ে। ভোরবেলাতেই জেগে উঠুন রোজ। দিনের আলোয় হোক নিত্যদিনের সঙ্গী।  সুস্বাস্থ্য আর সু-অভ্যাস দুটিই হবে ভোরের জাগরণে। আপনি ভরপুর হবেন প্রাণশক্তিতে, আর বেঁচে যাবে অহেতুক বিদ্যুৎ শক্তির খরচ।
* এসির ব্যবহার কমানো হোক – বাড়িতে শীতাতপনিয়ন্ত্রণ যন্ত্র থাকলেই যে সব সময় তা চালাতে হবে, তা কিন্তু নয়। কখনো কখনো প্রাকৃতিক হাওয়াও উপভোগ করতে পারেন ছাদে বা বারান্দায়। বারান্দার সবুজ গাছ ঘরেও আনে শীতল পরশ।
* জ্বালানী ব্যবহারে অপচয় রোধ করি -জ্বালানী গ্যাসের প্রবাহ অবিরাম পাচ্ছেন একই টাকায় এই ভেবে দেশের সম্পদের অপচয় করা যাবে না। আমাদের মা -বোনেরা অনেকেই ম্যাচের কাঠি বাঁচাতে চুলা জ্বালিয়ে রাখেন যেটা কোনভাবেই  উচিৎ নয় । প্রয়োজনের অধিক জ্বালানি গ্যাস ব্যবহার না করার অভ্যাস রপ্ত করতে হবে। এক্ষেত্রে জাতীয় সম্পদের অপচয় রোধে আইনের যথাযথ প্রয়োগ তথা জরিমানা আরোপের ব্যবস্থা নিশ্চিতে পদক্ষেপ নিতে হবে।
* মোটরযানের জ্বালানি বাঁচাতেও সচেষ্ট থাকুন- আমার টাকায় আমার জ্বালানী  আমি খরচ করবো এই মনোভাব থেকে বের হতে হবে কারণ জ্বালানীর জন্য সরকার প্রায় ৫-১০ গুণ ভর্তুকি দেন। কম দূরত্বের জন্য মোটরসাইকেলের চেয়ে বাই সাইকেলে বা  হেঁটে যাওয়া স্বাস্থ্যের জন্যও উপকারী। যানবাহনে বিনা প্রয়োজনে ইঞ্জিন বন্ধ রাখতে হবে।
* পানির সাশ্রয়ী ব্যবহার হোক – আপনি হয়তো  প্রতিনিয়ত পানি পাচ্ছেন । আবার কোথাও রাত জেগে মোটর চালিয়েও পানি পাচ্ছে না অনেকেই । সুপেয় পানির অভাব বিশ্বব্যাপী। আপনার পানির অপচয়ের কারণে হয়তো অনেক এলাকায় পানির সংকট দেখা দিবে। তাই প্রয়োজনীয়  পানি ‘ব্যবহার’ করুন কিন্তু  অপচয় নয়।
* কাপড় ধোয়ার যন্ত্রের সীমিত ব্যবহার হোক- কাপড় ধোয়ার যন্ত্র প্রতিদিন না চালিয়ে কাপড় জমিয়ে রেখে কয়েক দিন অন্তর চালাতে পারেন। অথবা ওয়াশিং মেশিন ব্যবহারের পরিবর্তে হাতে কাপড় ধৌত করলে শারীরিক পরিশ্রমের পাশাপাশি জাতীয় সম্পদও বেঁচে যাবে।
* সৌর বিদ্যুতের ব্যবহার বৃদ্ধি করা, পাওয়ার সেভিংস বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতির ব্যবহার।বাইরে বের হবার সময় ঘরের লাইট, ফ্যান, এসি  ওয়াইফাইয়ের সুইচ অফ করবেন।
* ইজিবাইক ও অটোরিকশা বন্ধ হোক – গবেষণায় দেখা গেছে অবৈধ প্রায় ১৫ লক্ষ ইজিবাইক ও অটোরিকশায় অবৈধ চার্জেই  গিলে খাচ্ছে প্রায় ২ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ। তাই দ্রুত সকল ইজিবাইক ও অটোরিকশা বন্ধ করতে হবে।
ভোগে নয়, ত্যাগেই প্রকৃত সুখ’ – ত্যাগই মানবজীবনের মহৎ আদর্শ। তাই বিদ্যুতের মিতব্যয়ী ব্যবহার ও অপচয় রোধ করে সকল অবৈধ  সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে লোডশেডিং সমস্যার দ্রুত সমাধান  করতে হবে।   মনে রাখতে হবে – সরকারের একার পক্ষে জাতীয় সম্পদ রক্ষা করা সম্ভব নয় এবং  জাতীয় সম্পদ ব্যবহারে প্রত্যেকের  একটুখানি সচেতনতার কারণে সাশ্রয় হওয়া  বিদ্যুৎই হয়তো একজনের বড় ধরনের কোনো কাজে লাগতে পারে।
অতএব, দেশের সুনাগরিক হিসেবে প্রত্যেকের নিজ জায়গা থেকে এগিয়ে আসা এবং নিজে সচেতনতা অবলম্বনপূর্বক অপরজনকে সচেতন করার মাধ্যমে বিদুৎসহ সকল রাষ্ট্রীয় সম্পদের  অপচয় কমিয়ে দেশের সার্বিক কল্যাণ নিশ্চিত করি।
লেখক: ইঞ্জিনিয়ার ফকর উদ্দিন মানিক 
লেখক – তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বই (একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণী) 
সভাপতি – সিএসই এলামনাই এসোসিয়েশন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।
সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে [sharethis-inline-buttons]

Check Also

পশুর সাথে মনের পশুত্বেরও কুরবানী হোক

মুসলিম সম্প্রদায়ের বড় আনন্দের ও ত্যাগের মহিমায় ভাস্বর, প্রভুভক্তির পরম পরাকাষ্ঠা প্রকাশের অন্যতম মাধ্যম পবিত্র …

error: Content is protected !!