Breaking News
Home / রাজনীতি / বঙ্গবন্ধুর পরিকল্পনা বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ চাই

বঙ্গবন্ধুর পরিকল্পনা বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ চাই

ম্যাটস্ যার পূর্ণরূপ মেডিকেল এসিস্টেন্ট ট্রেনিং স্কুল। যারা তিন বছর একাডেমিক পড়াশুনা ও এক বছর জেলা সদর হাসপাতাল গুলোতে ইন্টার্নশীপসহ মোট চার (০৪) বছরের কোর্স সম্পন্ন (ডিএমএফ ডিগ্রি) করে বাংলাদেশ মেডিকেল ও ডেন্টাল কাউন্সিল থেকে রেজিষ্ট্রেশন প্রাপ্ত হয়ে গ্রাম্য পর্যায়ে স্বাস্থ্য সেবা প্রদান করে যাচ্ছে। যাদেরকে সহজ ভাষায় ডিপ্লোমা ডাক্তার বা মেডিকেল এসিস্টেন্ট বলে অবহিত করা হয়।

স্বাধীনতার পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশের গ্রামীন স্বাস্থ্য ব্যবস্থা উন্নয়নে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান অল্প সময়ে এবং স্বল্প ব্যয়ে মধ্যম মানের চিকিৎসক তৈরির সিদ্ধান্তটি নিয়েছিলেন। যার পরিপ্রেক্ষিতেই ১৯৭৬ সালে মেডিকেল এসিস্টেন্ট ট্রেনিং স্কুল (ম্যাটস) এর যাত্রা শুরু হয়েছিলো। সেই যাত্রা থেকে বর্তমান পযন্ত বঙ্গবন্ধু স্বপ্ন পূরণে কাজ করে চলেছে বঙ্গবন্ধুর তৈরি করা মধ্যম মানের চিকিৎসকরা। অথচ তারা অাজ এসমাজে বিভিন্ন ভাবে অবহেলায় শিকার। স্বাধীনতার ৪৮ বছর অতিবাহিত হয়েছে এসময়ে বিভিন্ন পেশার মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন এসেছে কিন্তু বঙ্গবন্ধুর তৈরি মধ্যম মানের চিকিৎসক ভাগ্যতো ১৯৭৫ সালের ১৫ অাগষ্টই শেষ হয়ে গিয়েছে। তাইতো অাজও বাস্তবায়িত হয়নি মধ্যম মানের চিকিৎসকদের নিয়ে বঙ্গবন্ধুর পরিকল্পনা।

হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সরকারের প্রথম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনাতেই ছিলো গ্রামীন জনগোষ্ঠীর সেবা প্রদানকারী বঙ্গবন্ধুর তৈরি মধ্যম মানের চিকিৎসকদের ভাগ্যের গল্প। যা হয়তো বঙ্গবন্ধুর কন্যা মানবদরদী দেশরত্ন শেখ হাসিনার অজানায় রয়েছে। যার জন্যই স্বাধীনতার ৪৮ বছরেও পরিবর্তন হয়নি অবহেলিত এই জাতির ভাগ্য।

বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণে গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর সেবা নিয়োজিত মধ্যম মানের চিকিৎসকরা। তাদের নিয়ে যে পরিকল্পনা ছিলো বঙ্গবন্ধুর তা অামরা জানাতে চেয়েছিলাম অাপনাকে কিন্তুু অামরা পারি নি একটি কুচক্রীমহলের কারণে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণে চার দফা দাবী নিয়ে অামরা রাস্তায় দাড়িয়ে ছিলাম অনেকবার। কিন্তুু এখন অার চাই না উচ্চ শিক্ষা, চাই না স্বতন্ত্র বোর্ড, চাই না কমিউনিটি ক্লিনিকসহ বিভিন্ন অধিদপ্তর, পরিদপ্তর, বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকে নতুন পদ সৃষ্টি এবং তাতে ম্যাটস শিক্ষার্থীদের পদায়ন, চাই না ইন্টার্নি ভাতা।

অামরা মধ্যম মানের চিকিৎসক তথা ডিপ্লোমা চিকিৎসক বা মেডিকেল এসিস্টেন্ট বা ম্যাটস শিক্ষার্থীরা বিশ্বাস করে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বিফলে যাবে না তার রেখে যাওয়া স্বপ্ন পূরণে অাবির্ভাব হয়েছে গণতন্ত্রের মানুষ কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। এই অবহেলিত জাতি অাজও অাপনার মধ্যেই বঙ্গবন্ধুর প্রতিচ্ছবি দেখতে পায়। তারা অাবার নতুন করে স্বপ্নদেখে বঙ্গবন্ধুর তৈরি মধ্যম মানের চিকিৎসক ভাগ্য ১৯৭৫ সালের ১৫ অাগষ্টই শেষ হয়ে যায় নি। অামরা বিশ্বাস করি অাপনার সাথে সাক্ষাৎ ই একমাত্র পারে এই জাতিকে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে।

সজিবুল ইসলাম হৃদয়
ইন্টার্ণরত শিক্ষার্থী, ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতাল, সিরাজগঞ্জ ও শিক্ষার্থী, উদয়ন ম্যাটস রাজশাহী।

নিউজ ঢাকা।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে
সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

About নিউজ ঢাকা ২৪

Check Also

জবি ছাত্র ইউনিয়নের নতুন নেতৃত্বে মুত্তাকী-জাহিন

অপূর্ব চৌধুরী, জবি প্রতিনিধি আজ বৃহস্পতিবার (১৭ অক্টোবর) জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র ইউনিয়নের ২৮ তম কাউন্সিলে ...

মীর ইমদাদ স্কুলে মাদকবিরোধী আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

হৃদয় এস সরকার,নরসিংদী প্রতিনিধিঃ নরসিংদী জেলার সুনামধারী মীর ইমদাদ উচ্চবিদ্যাল (স্কুলে) জেলা মাদকদ্রব নিয়ন্ত্রণ কার্যালয়ের ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *