নরসিংদীতে প্রকাশ্যে সাবেক ইউপি সদস্যকে জবাই করে হত্যা

হৃদয় এস সরকার, নরসিংদী : পূর্ব শত্রুতার জের ধরে  নরসিংদীর হাজিপুরে প্রকাশ্যে সাবেক ইউপি সদস্যকে কুপিয়ে ও জবাই করে হত্যা করেছে সন্ত্রাসীরা।এসময় নিহতের ছেলে সুজন সহ ২ জন আহত হয়েছে। আজ রাত সাড়ে ৮টার দিকে নরসিংদীর উপ-শহর হাজিপুরের কাঠবাজার নিহতের নিজ দোকানে এ ঘটনা ঘটে। নিহত সুজিত সুত্রধর (৫৩) হাজিপুর ৩ নং ওয়াডের সাবেক ইউপি সদস্য ছিলেন। এবং হাজিপুর ইউনিয়ন বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি ছিলেন। নিহতের পরিবারের অভিযোগ স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের সাথে মামলা মোকদ্দমার জের ধরে ইউপি চেয়ারম্যানের মদদে তার লোকজন এই হত্যাকান্ড ঘটিয়েছেন।

এর আগেও ইউনিয়ন আওয়ামীলগের এই চেয়াম্যান ইউসুফ খান পিন্টুর বিরেদ্ধে হাজিপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম ও তার ভাই হত্যা মামলা আসামী।

নিহতের ছেলে সুজিত সূত্রধর জানিয়েছেন, সন্ধ্যার পর নিহত সুজিত বাড়ি থেকে তার ব্যাবসা প্রতিষ্ঠানে আসে। ওই সময় তার ছেলের সাথে ব্যাবসায়ীক বিষয় নিয়ে আলোচনা করছিল। রাত সাড়ে ৮টার দিকে বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যানের ভাই মনির,চেয়ারম্যানের সেকেন্ড ইন কমান্ড দেলু ,রাকিব ও পিন্টু চেয়ারম্যানের ছেলে নেতৃত্বে ২৫/৩০ জন সন্ত্রাসী দা,ছোড়া ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে সাবেক মেম্বারে সুজিত সুত্রধরের উপর হামলা চালায়। ওই সময় সন্ত্রাসীরা সুজিত মেম্বারকে এলোপাথারী কুপাতে থাকে। ওই সময় নিহতের ছেলে ও দোকানের কর্মচারীরা তাদের বাধা দিতে এগিয়ে গেলে তাদেরকেও পিটিয়ে আহত করে। পরে সন্ত্রাসীরা সুজিত মেম্বারকে কুপিয়ে ও জবাই করে হত্যা করে। ওই সময় তাদের আত্মচিৎকারে কেউ এগিয়ে আসেনি। পরে তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসত তাকে মৃত ঘোষনা করেন। এখবর নিহতের স্বজনদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে বাড়িতে কান্নার রোল পরে।

ঘটনার প্রতক্ষ্যদশি ও নিহতের ছেলে সুজন সুত্রধর আরো জানিয়েছেন,ইউপি সদস্য থাকা কালিন পরিষদের চাল ও গম বিতরনের অনিয়ম সহ নানা বিষয়ে হাজিপুর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ইউসুফ খান পিন্টুর সাথে বিরোধ ছিল।বিরোধের জের ধরে চেয়ারম্যানের নামে একাধিক মামলা করেন নিহত সুজিত সুত্রধর। মামলার জের ধরে তার বাবার উপর একাধিক বার হামলা করেছে পিন্টু চেয়ারম্যান। এই সাথে মামলা তুলে না নিলে আমার বাবাকে মেরে ফেলবে বলেও হুমকি দিয়ে আসছিল।

বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন বলেছেন,নিহত সুজিত মেম্বার জেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি ছিলেন। বর্তমান আওয়ামী সন্ত্রাসীরা তাকে নৃসংশ ভাবে হত্যা করেছে । আমরা এর সুষ্ঠ বিচার চাই। অন্যথায় আন্দোলনে নামবে বিএনপির নেতাকর্মীরা। এই বিষয়ে জানতে হাজিটুর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ইউসুফ খান পিন্টুর মোবাইল ফোনে একাধিক বার ফোন করলেও তার ফোন বন্ধ পাওয়া যা।  তবে পিন্টু চেয়ারম্যান মনির জানিয়েছেন,শত্রু কখনো শত্রুকে মারে না। বাজারে বার্নিস মেস্তুরিদের টাকা পয়সা নিয়ে নিহত সুজিতের ছেলে সুজনের সাথে ঝগহা হয়। এরই জের ধরে তার সুজিত মেম্বারকে হত্যা করা হয়।

নরসিংদী অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ)  সাহেব আলী পাঠান জানিয়েছেন, ঠিক কি কারনে হত্যাকান্ডটি সংঘঠিত হয়েছে। তা এখনো পরিস্কার নয়। তবে এই দুই পক্শের মধ্যেই মামলা মোকদ্দমা ছিল। হত্যার রহস্য ও আসামী গ্রেপ্তারে পুলিশ অভিযান শুরু করেছে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে [sharethis-inline-buttons]

Check Also

কেরানীগঞ্জে র‍্যাবের অভিযানে ১ কোটি টাকার হেরাইনসহ মাদক ব্যাবসায়ী গ্রেপ্তার

ঢাকার দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ এলাকা হতে প্রায় ০১ কোটি টাকা মূল্যের হেরোইনসহ ০৩ মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার …

error: Content is protected !!