Breaking News
Home / খেলা / ক্রিকেট নেশাকে পেশায় পরিণত করলেন ইমরান

ক্রিকেট নেশাকে পেশায় পরিণত করলেন ইমরান

পড়াশুনা দেশের এক বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসী বিভাগে। কিন্তু ঝোঁকটা তার ক্রিকেটের প্রতি। ক্রিকেট দেখাটা ছিল নেশা। সেই ঝোঁকের পিছনেই ছুটলেন। নেশাটাকে পেশায় পরিণত করে নিলেন। গল্পটা তরুণ ইমরান হাসানের।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারে দক্ষতা , ক্রিকেটের প্রতি ভালোবাসা ও ক্রিকেটজ্ঞানের অপূর্ব সমন্বয় ঘটিয়ে ইমরান হাসান যেমন নিজের মনের খোরাক মেটাচ্ছেন, ঠিক তেমনি আয়ও করছেন। বর্তমানে অনেক তরুণ যে স্বপ্ন দেখে তা হলো নিজের নেশা বা ভালো লাগার যে বিষয় তা সম্পর্কিত কাজ করেই অর্থ উপার্জন করা। সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে সক্ষম হয়েছেন ইমরান হাসান। নিজের মনের খোরাক মেটাচ্ছেন, মেটাচ্ছেন অর্থের চাহিদা।

শুরুটা বাংলাদেশের ক্রিকেটভিত্তিক স্বনামধন্য অনলাইন পোর্টাল বিডিক্রিকটাইম দিয়ে। এখনো সেখানে কর্মরত তিনি। ক্রিকেটের খবর লেখা দিয়ে শুরু করার পর বর্তমানে বিডিক্রিকটাইমের বিশাল ফেইসবুক পাতা সহ অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সামাল দেওয়ার কাজটাও করছেন। ফেইসবুক পেইজকে সক্রিয় রাখা এবং কার্যকরভাবে ব্যবহার করে ওয়েবসাইটের এঙ্গেজমেন্ট বাড়ানোর কাজটা দক্ষতার সাথে করছেন ইমরান হাসান।

ক্রিকেটের সাথে সম্পৃক্ততার পর ধীরে ধীরে সম্পৃক্ত হয়েছেন ক্রিকেটারদের সাথেও। সাদমান ইসলাম,আবু হায়দার রনি, নাঈম হাসান, আফিফ হোসেন ধ্রুব, মোসাদ্দেক হোসেন- জাতীয় দলের এই ক্রিকেটারদের ফেইসবুক পাতা সত্যায়িত করার প্রক্রিয়াটা তার হাত ধরেই। এনামুল হক বিজয়, মেহেদী হাসান মিরাজ, সাব্বির রহমানের টুইটার সত্যায়িত করার কাজটাও তিনি করেছেন।

এছাড়া মুস্তাফিজুর রহমান, ইমরুল কায়েস, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মুমিনুল হক, আবু হায়দার রনি, সাদমান ইসলাম, আফিফ হোসেন ধ্রুব প্রমুখের অ্যাথলেট ম্যানেজার তিনি। এ সকল ক্রিকেটার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম দেখভাল করেন তিনি। কোনো বার্তা দেওয়া, স্পন্সর্ড হলে তাদের নিয়ে পোস্ট করা সহ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমটা তিনিই দেখাশোনা করেন।

ভবিষ্যতে নিজের সুনাম অক্ষুণ্ণ রেখে কাজ করে যেতে চান ইমরান। দিতে চান পেশাদারিত্বের পরিচয়। একটি ক্রিকেট সংবাদমাধ্যমে কাজ করেন তিনি। পাশাপাশি অনেক ক্রিকেটারদের সাথেও কাজ করেন। তিনি জানালেন দুই কর্মক্ষেত্রেকে কখনো এক করেন না তিনি। একটি যেন অন্যটিকে প্রভাবিত না করে সেদিকে লক্ষ্য রাখেন বলে জানান ইমরান।

ফার্মেসী বিষয় নিয়ে স্নাতক শেষ বর্ষে অধ্যয়নরত ইমরান পড়াশোনা শেষেও এ পেশাতেই থাকতে চান। আজকাল সব ক্রিকেটাররাই ভক্তদের সাথে সংযুক্ত থাকতে, বিজ্ঞাপনের অংশ হিসেবে, নানা প্রচারণা চালাতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সম্পৃক্ত। মাঠের ব্যস্ততা সামাল দিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম দেখভাল করাটা তাদের জন্য খানিকটা কষ্টকর। ম্যানেজার ইমরান যেন সেই সমস্যার সমাধান। জাতীয় দলের অনেক ক্রিকেটার তাই আস্থা রেখেছেন তার কাছে। ইমরান জানালেন সেই আস্থার প্রতিদান ভবিষ্যতেও তিনি দিয়ে যেতে চান নিয়মিত।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে
সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

About নিউজ ঢাকা ২৪

Check Also

নাটোরে উপজেলা পর্যায়ে বঙ্গবন্ধু জাতীয় গোল্ডকাপের ফাইনাল অনুষ্ঠিত

সজিবুল ইসলাম হৃদয়, নাটোর প্রতিনিধিঃ নাটেরে চলমান জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ...

নেইমারকে নিয়ে বার্সার ইচ্ছা নিয়ে সন্দেহ মেসির

নেইমার বার্সায় আসছে কি আসছে না- চলমান এই বিতর্কের অবসান হয়েছে চলতি মাসের ২ তারিখেই। ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *