Breaking News
Home / অপরাধ ও আইন / কেরানীগঞ্জে শিশু মাহিন হত্যার ২ মাস পর মূল হত্যাকারী গ্রেপ্তার \ আসামীর স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দী
শিশু মাহিন

কেরানীগঞ্জে শিশু মাহিন হত্যার ২ মাস পর মূল হত্যাকারী গ্রেপ্তার \ আসামীর স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দী

শিশু মোঃ রবিউল ইসলাম মাহিনের গলা থেকে স্বর্নের চেইন ও আংটি জোড় পূর্বকছিনিয়ে নেওয়ার পর শিশু মাহিন কান্না জড়িক কন্ঠে তার বাবাকে বিষয়টি বলে দেওয়ার কথা বলে। আমি ভয় পেয়ে যাই। মাহিনের কাছে কথাটি শুনে আমার মাথা কাজ করছিল না কি করবো।

এক পর্যায়ে শিশু মাহিনকে হত্যর চিন্তা মাথায় আসলে সাথে সাথে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করি। প্রথমে লাশটি গাছপালার আড়ালে লুকিয়ে রাখি। এরপর বালুর মাঠে বালু তুলে গর্ত করে সুযোগ বুঝে মাটি চাপা দেই। ঔই দিন সন্ধ্যার পর মাহিনকে সবাই খুজতে থাকে। আমি স্বর্নের চেইন ও আংটি বিক্রি করে এখান থেকে চট্রগ্রামে চলে যাই। হত্যার দুই মাস পর গ্রেপ্তার শেষে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে কথা গুলো বলছিলেন শিশু মাহিন হত্যার মূল আসামী মিজান।

গত ২১ নভেম্বর দক্ষিন কেরানীগঞ্জ থানাধীন চর মীরের বাগ এলাকার নিজ বাড়ীর সামনে থেকে নিখোঁজ হয় শিশু মাহিন। চার দিন নিখোঁজ থাকার পর ২৫ নভেম্বর মীরেরবাগ ওরিয়েন্ট টেক্টটাইল মিলের পাশে বালুর মাঠে বালিতে মাটি চাপা অবস্থায় মাহিনের লাশ এলাকাবাসীর সহযোগিতায় পুলিশ খুজে পায়।

এ ঘটনায় নিহতের পিতা ইসমাইল হোসেন বাদী হয়ে দক্ষিন কেরানীগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দয়ের করেন। মামলা হওয়ার পর থেকে পুলিশ আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার ও বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন মাধ্যমে এ হত্যার সাথে মিজন জড়িত থাকার বিষয় নিশ্চিত করেন।

এরপর বৃহস্পতিবর গভীর রতে চট্রগ্রাম থেকে তাকে গ্রেপ্তার করার পর শুক্রবার দুপুরে দক্ষিন কেরানীগঞ্জ থনায় নিয়ে আসেন মিজানকে। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে মিজান হত্যার কথা অপকটে স্বীকার করে হত্যার ঘটন বর্ননা করেন।

নিহত শিশু মাহিনের পিত ইসমাইল হোসেন বলেন, আমার শিশু সন্তানকে খুনি যেভাবে হতা করেছে আমি আইনের কাছে দাবী করবো ঠিক সেভাবেই জন সম্মুক্ষে তাকেও সে ভবে হত্যা করা হউক। এ ঘটনা দেখে আর কোন পাষন্ড যেন শিশু হত্যা না করে।

দক্ষিন কেরানীগঞ্জ থানাধীন কোনাখোলা পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পরিদর্শক নির্মল কুমার দাস জানান, শিশু মাহিনের লাশ উদ্ধারের পরেই নিহতের পিতা বাদী হয়ে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।মামলা হওয়ার পর তদন্ত শুরু করে থানা পুলিশ।

তদন্তের এক পর্যায়ে আমরা হত্যার সাথে মিজানের সংশ্লিষ্টতার প্রমান পাই। মিজান একজন বখাটে সে মীরের বাগ এলাকায়ই থাকতো। তার গ্রামের বাড়ি বরিশাল জেলার মেহেন্দিগঞ্জ থানার সদর এলাকায়।

হত্যার সাথে জড়িত থাকার প্রমান পেয়েই আমরা মিজানকে খুজে বের করার চেষ্টা করতে থাকি। এর পরে তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার করে আমরা চট্রগ্রামের সীতাকুন্ডু এলাকায় একটি সমিলের ভেতর থেকে বৃহস্পতিবার রাত্রে গ্রেপ্তার করি। হত্যার পরে সে এখানে এসেই আত্মগোপন করে ছিলো শুক্রবার দুপুরে মিজানকে ঢাকায় নিয়ে আসি মিজান আমাদের জিজ্ঞাসবাদে ঘটনার সব কথা জানান।

দক্ষিন কেরানীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ শাহজামান জানান, শিশু মাহিন হত্যার আসামী মিজানকে চট্রগ্রামের সীতাকুন্ড থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তার হওয়া মিজান আমাদেও জিজ্ঞাসাবাদে অপকটে হত্যার সব কথা স্বীকার করেন। এ ঘটনায় আসামীর যেন সর্বোচ্চ শাস্তি হয় আমরা সে চেষ্টাই করবো।

নিউজ ঢাকা

আরো পড়ুন,জাবিতে ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে প্রশাসনের করা মামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

About নিউজ ঢাকা ২৪

Check Also

অভিযানে

কেরানীগঞ্জ র‍্যাবের অভিযানে বিয়ার সহ গ্রেফতার ১

কেরানীগঞ্জে র‌্যাবের অভিযানে বিয়ার সহ ১ জন কে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব – ১০ সিপিসি-২ । ...

শহীদ মিনার

জবি সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের উদ্যোগে শহীদ মিনার প্রাঙ্গনে আলপনা অঙ্কন

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের কর্মীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বর সজ্জিত করেছে বর্ণিল আলপনায়। আন্তর্জাতিক ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *